ভূমিকম্প পরবর্তী যৌথ অনুশীলন-২০১৯ সমাপ্ত

বিশেষ প্রতিনিধি: দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ এবং যুক্তরাষ্ট্র সেনাবাহিনীর যৌথ উদ্যোগে ‘ডিজাস্টার রেসপন্স এক্সারসাইজ এন্ড এক্সচেঞ্জ (ডিআরইই)-২০১৯’ শীর্ষক বহুজাতিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অনুশীলন আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা সেনানিবাসস্থ আর্মি গলফ ক্লাবে সমাপ্ত হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) তারিক আহমেদ সিদ্দিক প্রধান অতিথি হিসেবে ডিআরইই বাংলাদেশ ২০১৯-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।
আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্ততে আজ একথা জানানো হয়।
সমাপনী অনুষ্ঠানে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মোঃ এনামুর রহমান বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।
সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ, নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল আওরঙ্গজেব চৌধুরী এবং বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাতও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
এছাড়া, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত এবং সামরিক উপদেষ্টাগণও সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
এই অনুশীলনের মূল উদ্দেশ্য সম্পর্কে আইএসপিআর আজ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, ভুমিকম্প মোকাবেলায় সার্চ এন্ড রেসকিউ, কমিউনিকেশন, মেডিকেল, শেল্টার, রিলিফ কার্যক্রম ইত্যাদির আলোকে ডিজিস্টার ইনসিডেন্ট ম্যানেজমেন্ট টিম (ডিআইএমটি) প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে নিজস্ব সক্ষমতা যাচাই এবং মজবুত করা হবে এই অনুশীলনের মাধ্যমে। দুর্যোগ মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক যন্ত্রপাতি সম্পর্কে জ্ঞান ও অনুশীলন বৃদ্ধির মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ব্যবস্থাসমুহ জাতীয় ব্যবস্থার সাথে একীভূতকরণের প্রয়াস নেয়া। অনুরুপ অনুশীলন যাতে বিভাগীয় দপ্তরের পরিকল্পনাকারী বা দুর্যোগ সমন¡য়কারী (সামরিক ও অসামরিক) স্থানীয় পর্যায়ে আয়োজন করতে পারে তার প্রশিক্ষণ প্রদান করা।
আইএসপিআর জানিয়েছে, ডিআরইই এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অ’লে ভূমিকম্প দুর্যোগ সংক্রান্ত বৃহত্তম অনুশীলন। এ অনুশীলনটিতে ২৩৭ টি বিভিন্ন সংস্থা হতে ৫০০ এর বেশি অংশগ্রহণকারী অংশ নিয়েছেন। অনুশীলনটি ২৭ অক্টোবর হতে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত একযোগে ঢাকা ও রংপুরে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবারের মূল প্রতিপাদ্য ‘রিজিলেন্স থ্রো প্রিপেয়ার্ডনেস’ সামনে রেখে ডিআরইই বাংলাদেশ ২০১৯ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার একটি মাইল ফলক হয়ে থাকবে বলে সকলে আশা প্রকাশ করেছেন।
উল্লেখ্য, অনুশীলনটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মোঃ এনামুর রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। ডিআরইই-এর প্রথম দুই দিন সাবজেক্ট মেটার এক্সপার্ট এক্সচেঞ্জ (এসএমইই) অনুষ্ঠিত হয়েছে যেখানে বিভিন্ন এসএমইই কর্তৃক ধারাবাহিক উপস্থাপনা বা আলোচনা করা হয়েছে। অনুশীলনের তৃতীয় দিনে টেবিল টপ এক্সারসাইজ (টিটিএক্স) অনুষ্ঠিত হয়েছে, যেখানে বাংলাদেশে ভূমিকম্প আঘাত হানার পরবর্তী পরিস্থিতির আলোকে অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন ফাংশনাল গ্রুপে বিভক্ত করা হয়েছিল। টিটিএক্স-এর মাধ্যমে ডিআইএমটি এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার অন্যান্য ফ্রেমওয়ার্ক সমূহকে আরো শক্তিশালী করা এবং তা মোকবেলার উপায়সমুহ চিহ্নিত করণের প্রয়াস নেয়া হয়েছে।
আইএসপিআর আরও জানিয়েছে, চতুর্থ দিন বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা ‘এল ব্লক’ এ একটি বৃহৎ ফিল্ড ট্রেনিং এক্সারসাইজ (এফটিএক্স) আয়োজিত হয়েছে। টিটিএক্স-এ আলোচিত তাত্ত্বিক বিষয়সমুহকে এফটিএক্স-এ ব্যবহারিক প্রয়োগের মাধ্যমে তার সঠিকতা যাচাই করা হয়েছে। এফটিএক্স-এ প্রায় ১২০০ অংশগ্রহণকারী ব্যবহারিক অনুশীলনে যোগ দেয়। এছাড়া, ২০ টিরও বেশি দেশের শতাধিক অংশগ্রহণকারী এই অনুশীলনে যোগ দিয়েছেন। এই ধরনের অনুশীলন ভূমিকম্প জনিত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে। এফটিএক্স- এ স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এফটিএক্স-এ সার্চ এন্ড রেসকিউ, ফায়ার ফাইটিং, এরো মেডিকেল ইভাকুয়েশন, লজিস্টিকস ম্যানেজমেন্ট, ক্যাম্প ও হিউম্যান রিমেইনস ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদি অন্তর্ভূক্ত ছিল। ৫ম দিনে অনুশীলনটি সমাপনী অনুষ্ঠান এবং আফটার এ্যাকশন রিভিউ এর মাধ্যমে শেষ হয়েছে।