টুইটারে রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ

নিউজ ডেস্ক:    বিশ্বব্যাপী সব ধরনের রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করেছে অন্যতম জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এবং মাইক্রোব্লগিং ওয়েবসাইট টুইটার। বুধবার প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) জ্যাক ডরসি এ ঘোষণা দিয়েছেন ।

তিনি বলেছেন, ‘যদিও ইন্টারনেট বিজ্ঞাপন বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপনদাতাদের জন্য অবিশ্বাস্যভাবে শক্তিশালী এবং কার্যকর ভূমিকা পালন করছে, তবুও রাজনীতি’র ক্ষেত্রে এটি উল্লেখযোগ্য ঝুঁকি নিয়ে আসে।’

বিবিসি অনলাইন-এর প্রতিবেদনে জানা যায়, টু্‌ইটারের রাজনৈতিক বিজ্ঞাপনের ওপরে এ নিষেধাজ্ঞা আগামী ২২ নভেম্বর থেকে কার্যকর করা হবে।এ বিষয়ে সম্পূর্ণ বিবরণী পাওয়া যাবে আগামী ১৫ নভেম্বর।

টুইটারের অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফেসবুক অবশ্য রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন বন্ধ না করার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে। ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গের মতে, গণতন্ত্রের স্বার্থে বেসরকারি সংস্থাগুলোর রাজনৈতিক সংবাদের সেন্সর করা ঠিক নয়।

এদিকে টুইটারের এ ঘোষণায় যুক্তরাষ্ট্রের ২০২০ সালের আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারণা শিবিরগুলো বিভক্ত হয়ে পড়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শিবিরের ম্যানেজার ব্রাড পারস্কেল বলেন, ‘এই নিষেধাজ্ঞা ট্রাম্প এবং রক্ষণশীলদের চুপ করিয়ে দিতে বামদের একটি প্রচেষ্টা।’

অন্যদিকে ডেমোক্রেটিক প্রার্থী জো বাইডেনের রাজনৈতিক শিবিরের মুখপাত্র বিল রুসো বলেছেন, ‘যখন বিজ্ঞাপনের অর্থ ও আমাদের গণতন্ত্রের অখণ্ডতার মধ্যে বেছে নেওয়ার প্রশ্ন এল, দেখা গেল আয় জিতে যায়নি। এটি খুবই উৎসাহব্যঞ্জক।’

উল্লেখ্য,যুক্তরাজ্যের রাজনৈতিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা ফেসবুক থেকে প্রায় ৯ কোটি ব্যবহারকারীর তথ্য অনৈতিকভাবে সংগ্রহ করার ঘটনা ছিল গত বছরের অন্যতম বড় রাজনৈতিক কেলেঙ্কারি। রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন প্রচারের ক্ষেত্রে তারা অনৈতিকভাবে ওইসব তথ্য কাজে লাগিয়েছিল। এ ঘটনায় জাকারবার্গকে কংগ্রেসের শুনানিতেও অংশ নিতে হয়।