বিজয় পুরো চলচ্চিত্র পরিবারের : মিশা

নিউজ ডেস্ক:    বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে সভাপতি পদে চিত্রনায়িকা মৌসুমীকে হারিয়ে বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে মিশা সওদাগর বলেছেন, এ বিজয় পুরো চলচ্চিত্র পরিবারের। গতকালের নির্বাচনে জয় নিশ্চিত হওয়ার পর তিনি এ কথা বলেন।

মিশা সওদাগর বলেন, ‘এই জয় আমার নয়, এই জয় পুরো চলচ্চিত্র পরিবারের। তারা চেয়েছেন বলেই আবারও আমাকে শিল্পী সমিতির সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত করেছেন। এজন্য সমিতির সকল ভোটারদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ।’

গতকাল বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে তিনি সভাপতি পদে ভোট পান ২২৭টি। অপরদিকে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী চিত্রনায়িকা মৌসুমী পান ১২৫ ভোট।

বিপুল ব্যবধানে জয়ী হওয়া প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে মিশা বলেন, ‘সমিতির নির্বাচনে এবারই প্রথম পুরো প্যানেল জয়লাভ করল। তাও আবার বিপুল ভোটে। আপনারা লক্ষ্য করে দেখেছেন, সমিতির প্রতিটি সদস্য স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দিতে এসেছে। নির্বাচন ঘিরে, বৃষ্টির মাঝেও এফডিসি হয়ে উঠেছিল উৎসবমুখর। কঠোর নিরাপত্তা থাকার কারণে এই উৎসবে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।’

নির্বাচন কমিশন স্বচ্ছ থেকে সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে উল্লেখ করে মিশা আরও বলেন,‘আপনারা দেখেছেন, ভোট গণনা লাইভ সবার সামনে দেখানো হয়েছে। সবশেষে আমি প্রশাসন, নির্বাচন কমিশন ও সকল ভোটারদের কাছে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করি, এমন সুন্দর একটি ভোট উৎসব আমাদের উপহার দেওয়ার জন্য।’

এর আগে গতকাল শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে শুরু হওয়া এই নির্বাচন চলে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত। নির্ধারিত সময়ের ৩০ মিনিট বেশি ভোটগ্রহণ হয়। সকাল থেকে শুরু হওয়া নির্বাচনে ভোটার কম থাকলেও দুপুরের পর থেকে বাড়তে থাকে সংখ্যা।  রাত ১টায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার ইলিয়াস কাঞ্চন ফলাফল ঘোষণা করেন।

নির্বাচনে বিভিন্ন পদে লড়েছেন ২৭ জন শিল্পী। ১১টি কার্যনির্বাহী সদস্য পদে ১৪ জন প্রার্থীর মধ্যে জয়লাভ করেন− অঞ্জনা সুলতানা, রোজিনা, অরুণা বিশ্বাস, আলীরাজ, বাপ্পা রাজ, আফজাল শরীফ, মারুফ, আসিফ ইকবাল, আলেকজান্ডার বো, জেসমিন ও জয় চৌধুরী। প্রত্যেকেই মিশা-জায়েদ প্যানেলের হয়ে নির্বাচন করেছেন।

৪৪৯ জন ভোটারের মধ্যে ভোট পড়েছে ৩৮৬টি। চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির এবারের নির্বাচনে শুধু একটি প্যানেল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে, মিশা সওদাগর এবং জায়েদ খান। এর বাইরে অন্যরা স্বতন্ত্র নির্বাচন করেছেন।

এর আগে, প্যানেল গঠন করতে চেয়ে অন্যান্যরা সরে দাঁড়ালে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবেই সভাপতি পদে লড়েন মৌসুমী। সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খানের বিপরীতে স্বতন্ত্রভাবে লড়ছেন ইলিয়াস কোবরা। সহসভাপতি দুটি পদে লড়ছেন ডিপজল, রুবেল ও নানা শাহ (স্বতন্ত্র)।