‘সনজিতের প্রোগ্রাম না করলে হল থেকে নেমে যেতে হবে’!

ওবায়দুর রহমান সোহান, ঢাবি প্রতিনিধি:

গত মাসের ৩০ তারিখ সাড়ে ১১ টার সময় আমার ক্লাস থাকার কারনে মধুর ক্যন্টিনে সনজিত দাদার প্রোগ্রামে উপস্থিত হতে পারিনি। সাড়ে ১১ টা ৩৫ মিনিটে হলের তথাকথিত ছাত্রলীগের কর্মিরা আমাকে কল দিয়ে মধুতে সনজিত দাদার প্রোগ্রামে অ্যাটেন্ড করতে আদেশ দেয়। আমি বলি, ক্লাসে আছি, প্রোগ্রামে যেতে পারব না। ছাত্রলীগের কর্মীরা আমাকে বলে, প্রোগ্রাম না যদি ক্লাস কর, তাহলে তোমাকে কালকে হল থেকে নেমে যেতে হবে।

আজ ১৮ অক্টবর ২০১৯ বৃহস্পতিবার বেলা ১২.৩০ মিনিটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপারাজেয় বাংলার পাদদেশে, ছয় দফা দাবি নিয়ে “বৈধ সিট অামার অধিকার” মঞ্চ কর্তৃক আয়োজিত একটি মানববন্ধনে নিজেকে ভুক্তভোগি দাবি করে এসব কথা বলেন ঢাবি ইংরেজি বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী শাহজাহান তানিম।

ছাত্রলীগের তথাকথিত ‘টর্চারসেলে’ নির্যাতনের শিকার এই ভুক্তভোগি শিক্ষার্থী বলেন, আমাকেও বিভিন্নভাবে গেস্টরুম নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে। তিন ধরনের গেস্টরুমের মাধ্যমে তারা টর্চার সেল বানিয়ে রেখেছে। একটা হল ফরমাল গেস্টরুম যার মাধ্যমে পরিচিতি সুযোগ থাকে, বিগ ও মিনি এবং পার্সোনাল গেস্টরুম। এরমধ্যে মিনি গেস্টরুম ও সিঙ্গেল গেস্টরুমকে অঘোষিত টর্চার সেল। প্রত্যেকটা বিশ্ববিদ্যালযয়ে এই টর্চার সেল বানিয়ে রেখেছে ক্ষমতাসীন ছাত্রলীগ কিন্তু তারা যে অপচেষ্টার মাধ্যমে তা অস্বীকার করার চেষ্টা করছে। পরিচয় পর্বের নাম করে ছাত্রদের নির্যাতন করে প্রোগ্রাম নিয়ে যায়।

প্রথম বর্ষ থেকে বৈধ সিট নিশ্চিতের দাবি জানাতে উক্ত মানববন্ধনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরবি বিভাগের তৃতীয় বর্সের শিক্ষার্থী মাহমুদুর রহমান সাজিদ বলেন, ঢাবিতে কেউ কারো দাসত্ব করতে ভর্তি হয়নি।

দর্শণ বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের সজিব হোসেন বলেন, ছাত্র রাজনীতি নয়, সন্ত্রাসী সংগঠন ছাত্রলীগকে নিষিদ্ধ করতে হবে।

অরুণিমা তাহসিন বলেন “আজ অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলার জন্য মেয়েরাই সবচেয়ে নিগৃহীত হচ্ছেন।”

বৈধ সিট আমার অধিকার মঞ্চের সংগঠক উমামা ফাতেমা বলেন, যতদিন নিপীড়ন থাকবে ততদিন গ্রাফিতি করব,রাস্তায় নামব। যতদিন গেস্টরুম চলবে বা বৈধ সিট দেয়া হবেনা ততদিন আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবো।

এছাড়াও মানববন্ধনে তারা নিন্মক্ত ৬ দফা দাবি পেশ করেন।
১।১ম বর্ষ থেকে প্রশাসনিকভাবে বৈধ সিট দিতে হবে।
২। গেস্টরুম নামক টর্চারসেল সম্পূর্ণ বন্ধ করতে হবে।
৩। হলে অবস্হানরত অবৈধ এবং অছাত্রদের হল ত্যাগে বাধ্য করতে হবে।
৪। পলিটিক্যাল গণরুম সম্পূর্ণ বাতিল করতে হবে।
৫।সিট বরাদ্দে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ চলবেনা।
৬। পলিটিক্যাল রুমের নামে রুম দখল চলবেনা।