বাংলাদেশের পুণরুত্থানের হাতিয়ার তথ্যপ্রযুক্তি: তথ্যমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:  তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, চতূর্থ শিল্পবিপ্লবের বিশ্বে তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমেই বাংলাদেশের পুণরুত্থান ঘটছে এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে তাঁর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয়ই এর মূল দিকনির্দেশনক।

শনিবার (১২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় ঢাকায় র্যাডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন হোটেলের বলরুমে দেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে উদ্যোক্তাদের প্রণোদনাদানের লক্ষ্যে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অভ সফটওয়্যার এন্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) আয়োজিত বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি এওয়ার্ড ২০১৯ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘অতীতে কৃষিনির্ভর বিশ্বে বাংলাদেশ ছিল সমৃদ্ধ অঞ্চল। সেকারণেই ডাচ-ওলন্দাজ-ব্রিটিশ-বর্গীরা বারবার এখানে হানা দিয়েছে। কিন্তু শিল্পবিপ্লবের শুরু থেকেই প্রথম তিন শিল্পবিপ্লবে বাংলাদেশ পিছিয়ে পড়ার কারণে কৃষিযুগের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি হারায়।’

‘কিন্তু, চতূর্থ শিল্পবিপ্লব বা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির প্রসারের যুগে আবার জেগে উঠছে বাংলাদেশ’ উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান বলেন, ‘দেশের কেউ যখন ভাবেনি, তখন জনাব সজীব ওয়াজেদ জয় তথ্যপ্রযুক্তি বিপ্লবের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবার পরিকল্পনা করেছেন। আর তা রূপায়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেখেছেন ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ গড়ার স্বপ্ন।’

‘দেশের বিভিন্ন সেবাখাতের দিকে তাকালে বোঝা যায়, ডিজিটাল বাংলাদেশ আজ আর স্বপ্ন নয়, বাস্তব’ বলেন তথ্যমন্ত্রী।

বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন ও তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ও বিভিন্ন বিভাগে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। বেসিস পরিচালক দিদারুল আলম সানি এবং বেসিস ও স্পন্সর প্রতিষ্ঠান আইপিডিসি’র কর্মকর্তাবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, শেখ হাসিনার সরকারের অঙ্গীকার অনুযায়ী জনপ্রশাসনের প্রতিটি ক্ষেত্রই ডিজিটালাইজড করার প্রক্রিয়া চলছে।

প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ও তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের তত্ত্বাবধানে দেশ আজ হতে চলেছে স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ।

গত বছর জমা হওয়া দেশব্যাপী বিভিন্ন সংস্থার ১১৭৫টি প্রকল্প থেকে বাছাই করে ৩৫ বিভাগে ৬৯ টি পুরস্কার অতিথিবৃন্দ বিজয়ীদের হাতে তুলে দেন। পুরস্কারপ্রাপ্তদের মধ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ ও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলও রয়েছে। উল্লেখ্য, বিজয়ীরাসহ ৮০ সদস্যের বাংলাদেশ দল প্রথমবারের মতো সবচেয়ে বড় দল হিসেবে ভিয়েতনামের হ্যানয়ে এশিয়া প্যাসিফিক আইসিটি এলায়েন্স-এপিকটা এওয়ার্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে।