রংপুর- ৩ আসনের উপনির্বাচনে সাদ বিজয়ী

নিউজ ডেস্ক:   জাতীয় পার্টির সাবেক চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া রংপুর- ৩ আসনের উপনির্বাচন অবাধ, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষণ পরিষদ-জানিপপ জানিয়েছে।

রবিবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানায়।বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ৫ অক্টোবর অনুষ্ঠিত রংপুর-৩ জাতীয় সংসদের শূন্য আসনে উপনির্বাচনে বিভিন্ন ভোটকেন্দ্র সফলভাবে জানিপপ পর্যবেক্ষণ করেছে।জানিপপ-এর ১৫ জন স্বল্পমেয়াদি পর্যবেক্ষক ভ্রাম্যমাণ ভিত্তিতে ২০টি ইভিএম ভোটকেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করেন। পর্যবেক্ষণ কার্যক্রমে নেতৃত্ব দেন জানিপপের চেয়ারম্যান প্রফেসর ডক্টর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ।

পর্যবেক্ষণে পরিলক্ষিত হয় যে, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যগণের মধ্যে পুলিশ, বিজিবিসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। প্রতি কেন্দ্রে ২ জন করে সেনা সদস্য টেকনিক্যাল সাহায্য প্রদানের জন্য মোতায়েন ছিলেন। এ ছাড়াও জাতীয় ও স্থানীয় গণমাধ্যম যেমন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দের উপস্থিতি ছিল সন্তোষজনক। এ নির্বাচনে ১৭৫টি ভোটকেন্দ্রের সবগুলোতে ইভিএম (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) এর মাধ্যমে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইভিএম-এর ব্যবহার সম্পর্কে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে বলে প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারি প্রিজাইডিং অফিসার ও নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ জানিয়েছেন। ভোটারগণ ইভিএম ব্যবহার করে ভোট দিতে কোন অসুবিধা হয়নি বলে জানিয়েছেন।

এ উপ-নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি ও নির্বাচন কমিশনের প্রস্তুতি ছিল স্বাভাবিক, সুশৃঙ্খল ও সন্তোষজনক। সকাল ৯টা শুরু হয়ে বিকাল ৫টায় ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। সকালের দিকে ভোটার উপস্থিতি কম থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটার উপস্থিতি তুলনামূলকভাবে বাড়তে থাকে। সামগ্রিক বিচারে এ নির্বাচন অবাধ, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে জানিপপ মনে করে।

উল্লেখ্য, রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রয়াত চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদের ছেলে রাহগির আলমাহি সাদ এরশাদ। তিনি ৫৮ হাজার ৮৭৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ও বিএনপির প্রার্থী রিটা রহমান পেয়েছেন ১৬ হাজার ৯৭৪ ভোট।