ময়মনসিংহে প্রতিবন্ধী শিশু-কিশোরদের শিক্ষা বিকাশে অটিজম স্কুল

ময়মনসিংহ জেলা প্রতিনিধি: ময়মনসিংহে প্রতিবন্ধী শিশু-কিশোরদের শিক্ষা-বিকাশে অটিজম স্কুলটি, ময়মনসিংহ মহানগরের ৬২/এ, বাঘমরায় অবস্থিত। এই স্কুলটি সমাজের পিছিয়ে থাকা প্রতিবন্ধী শিশু-কিশোরদের জন্য আন্তরিকতার সাথে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

অটিজম সাপোর্ট এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ জাতীয় পর্যায়ের একটি সংগঠন।যার রেজিঃ নং ঢঃ০৯৪৭৮, স্মারক নং ৪১.০১.০০০০.০৪৬.২৮.০৬৬.১৯.৫৩০ তারিখ ৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৭ জুন ২০১৭।

উল্লেখ্য, সংগঠনটি ২০১৭ সাল থেকে অত্যন্ত সুনামের সাথে অটিজমে আক্রান্ত শিশু-কিশোরদের স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা ও সচেতনতামূলক কাজ করছে।ময়মনসিংহ জেলায় সংগঠনটির কার্যক্রম চলমান আছে।

১৬ সেপ্টেম্বর (সোমবার), ময়মনসিংহ জেলা সমাজসেবা অফিসের উপপরিচালক আবু আব্দুল্লাহ মোঃ ওয়ালী উল্লাহ্ স্কুলটি সরেজমিন প্রদক্ষিণ করে সংগঠনটির কার্যক্রমে সন্তুষ প্রকাশ করেন এবং একটি প্রত্যয়নপত্র প্রদান করেন। এছাড়াও তিনি ভবিষ্যতে এই সমস্ত সুবিধাবঞ্চিত শিশু-কিশোরদের কল্যাণে কাজ করা অটিজম সাপোর্ট এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ পরিচালিত ময়মনসিংহ অটিজম স্কুলে ও সংগঠনটির কার্যক্রম বেগবান রাখতে সার্বিক সহযোগীতার আশ্বাস প্রদান করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সংগঠনের জেলা অর্থ সম্পাদক রেজাউল কবির বলেন, “আমরা সংগঠনের সদস্যরা নিজেদের অর্থায়নে কাজ করে যাচ্ছি,সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা পেলে আমরা আরো বেশি কাজ করতে পারব”।

সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান মনির বলেন,-“সমাজের এই বিশেষ শিশুদের কল্যাণে,তাদের শিক্ষা,স্বাস্থ্যসেবা প্রদান, অটিজমে আক্রান্ত শিশু-কিশোরদের সাথে কেমন আচরন করা উচিত এ বিষয়ে ঘরে ঘরে লিফলেট বিতরন করছি।শিক্ষার্থীদের অভিভাবক নিয়ে অভিভাবক সমাবেশ করছি”।

সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহমেদ চৌধুরী বলেন,-“মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মমতাময়ী মা জননেত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার ভিত্তিক প্রজেক্ট হলো অটিজমে আক্রান্ত শিশু-কিশোরদের উন্নতি সাধন। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন বাস্তবায়নে সমাজের পিছিয়ে থাকা বিশেষ শিশু-কিশোরদের জন্য আন্তরিকভাবে নিরলস কাজ করে যাচ্ছি”।

সংগঠনটির ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি হাবিবুর রহমান বলেন,-“সারা পৃথিবীর অটিস্টিক বাচ্চাদের কল্যাণে বাংলাদেশ আজ রোল মডেল।আমরা সত্যিকার অর্থে এই সকল অটিস্টিক বাচ্চাদের কল্যাণে কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশ মোতাবেক মাঠ পর্যায়ে কাজ করছি। ইতোমধ্যে জেলা সমাজসেবার মাননীয় উপ-পরিচালক আমাদের অফিস ভিজিট করে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন,এতে আমরা আরো ভাল কাজ করার ব্যাপারে উৎসাহিত হয়েছি। আমরা সরকারের সার্বিক সহযোগীতা আশা করি”।  

অটিজম সাপোর্ট এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ পরিচালিত ময়মনসিংহ অটিজম স্কুলের প্রধান শিক্ষক শারমিন আক্তার বলেন,-“আমাদের স্কুলে ইতিমধ্যে একশত ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি হয়েছে।শিক্ষার্থীরা বিনা বেতনে এখানে পড়াশোনা করছে। আমরা শিক্ষকরাও বিনা বেতনে পড়াচ্ছি। আমাদের স্কুলটা ভাড়া বাসায় চলছে।ঠিকমতো ছাত্র-ছাত্রীদের জায়গা দিতে পারছিনা। একটা স্থায়ী জায়গার ব্যবস্থা হলে আমাদের এইসমস্ত সুবিধাবঞ্চিত শিশু-কিশোরদের জন্য অনেক ভাল হতো”।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম/জাহিদ।