ভারতীয় মুদ্রার দাম ক্রমেই কমছে

নিউজ ডেস্ক:   ডলারের বিপরীতে ভারতীয় মুদ্রার দাম ক্রমেই কমছে। সেই তুলনায় বাংলাদেশি মুদ্রা অনেক ভালো জায়গায় রয়েছে। বর্তমানে এক ডলারের (ইউএসডি) বিপরীতে ভারতীয় রুপির দর দাঁড়িয়েছে ৭২.২৮ পয়সায়। পাশাপাশি টাকার বিপরীতে রুপির দরও কমে যাচ্ছে। বর্তমানে ১০০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৮৬ রুপি। বাংলাদেশি এক টাকা ১৪ পয়সায় মিলছে ভারতীয় এক রুপি। ফলে ভারতীয় রুপির সমান হতে বাংলাদেশি মুদ্রার লাগবে মাত্র ১৪ পয়সা।

টাকার বিপরীতে রুপির দর আরও কমতে পারে বলে জানিয়েছে ওয়ালেট ইনভেস্টর নামে একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান। তাদের ধারণা, ২০২৪ সাল নাগাদ রুপি ও টাকার মান সমান হতে পারে। কিংবা টাকার মান বেশি হতে পারে।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, টাকার বিপরীতে রুপির দর কমে যাওয়ায় বাংলাদেশ থেকে যারা বেড়াতে বা চিকিৎসার জন্য ভারতে যাচ্ছেন তাদের সুবিধা হলেও বৈদেশিক বাণিজ্যে ভারতের চেয়ে বেশি ক্ষতি হচ্ছে বাংলাদেশেরই।

জানা গেছে, ’৭১-এ বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর টাকা ও রুপির দর প্রায় সমান ছিল। এরপর থেকে পড়তে থাকে বাংলাদেশি টাকার দাম। এ বছর আগস্টের শুরু থেকেই ভারতীয় মুদ্রার অবনতি শুরু হয়েছে। গত দুই মাসে রুপির মান কমেছে প্রায় ১৫ শতাংশ।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, ভারতীয় রুপির বিপরীতে বাংলাদেশের টাকা শক্তিশালী হওয়ায় রফতানি বাণিজ্যে দেশটির সঙ্গে প্রতিযোগিতা সক্ষমতায় পিছিয়ে পড়ছে বাংলাদেশ। যদিও ভারত থেকে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে মিলছে বাড়তি সুবিধা। তবে এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ভারতীয় পণ্যের অবাধ আমদানি হলে দেশটির সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতি আরও বাড়বে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের (বিআইডিএস) সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ডলারের বিপরীতে রুপির দরপতন হওয়ায় বাংলাদেশের টাকা শক্তিশালী হচ্ছে। এতে ভারত থেকে আমাদের পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে কিছুটা বাড়তি সুবিধা হলেও আন্তর্জাতিক বাজারে রফতানি বাণিজ্যে বাংলাদেশ ভারতের সঙ্গে প্রতিযোগিতা সক্ষমতায় পিছিয়ে পড়ছে।’

টাকার বিপরীতে রুপির দাম দীর্ঘমেয়াদের জন্য কমে গেলে বাংলাদেশের জন্য বেশি ক্ষতি হবে বলে মনে করেন বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের (সিপিডি) গবেষক খোন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম। তিনি বলেন, ‘যদি দীর্ঘ মেয়াদের জন্য টাকার বিপরীতে রুপির দর কমে যায় তাহলে বাংলাদেশেরই বেশি ক্ষতি হবে। পক্ষান্তরে বাংলাদেশি পণ্য কিনতে ক্রেতাদের বেশি টাকা খরচ করতে হবে। এতে বাংলাদেশি পণ্যের চাহিদা কমে যেতে পারে।’

যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্য যুদ্ধ প্রকট হওয়ায় এর প্রভাব পড়ছে এশিয়ার একাধিক দেশের মুদ্রার ওপর। এর জেরেই ডলারের চাহিদা বেড়েছে। ফলে কমছে রুপির দর।