গৃহবধু শাহীনুর আক্তার হত্যা মামলার বাদী হুমকির মুখে

নেত্রকোনা প্রতিনিধি : নেত্রকোনায় চাঞ্চল্যকর গৃহবধু শাহীনুর আক্তার (২৬) হত্যা মামলার বাদীর পরিবার আসামীদের হুমকির মুখে বলে অভিযোগ উঠেছে। বাদীপক্ষ এ নিয়ে নিরাপত্তার জন্য নেত্রকোনা মডেল থানায় একাধিক সাধারণ ডায়েরী (জিডি) করেছেন। মামলার প্রধান আসামী সোহেল মিয়াকে (২৮) ঘটনার প্রায় সাড়ে চার মাসেও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

নিহত গৃহবধু শাহীনুর আক্তার নেত্রকোনা পৌর শহরের সাতপাই রেল কোলনী এলাকার আব্দুস সালামের স্ত্রী। গত ১৮ই মে রাতে দুবৃত্তরা তাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে।

স্থানীয় বাসিন্দা, পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, ১৭ই মে সন্ধায় সাতপাই রেল কোলনী এলাকার ইদ্রিস মিয়ার ছেলে সোহেল মিয়া একই এলাকার এক নারীর সঙ্গে অনৈতিক কাজে লিপ্ত হয়। গৃহবধু শাহীনুর আক্তার সেই দৃশ্য দেখে সহ্য করতে না পেরে প্রতিবাদ করেন। এ সময় সোহেল মিয়া এর প্রতিশোধ নিবে বলে হুমকি দেয়। পরদিন রাত ২টার দিকে শাহীনুর আক্তার সেহেরী রান্নার জন্য উঠেন। তিনি ঘরের দরজা খুলে বাড়ির উঠান থেকে নলকূপের পানি আনতে যান। এ সময় সোহেল ও তার সঙ্গীরা শাহীনুরের উপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা শাহীনুরকে উপুর্যপরী ছরিকাঘাত করে। এতে শাহীনুর গুরুতর আহত হয়। চিৎকার শুনে স্থানীয় লোকজন শাহীনুরকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মামলার প্রধান আসামী সোহেল মিয়াকে (২৮) ঘটনার প্রায় সাড়ে চার মাসেও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। ঐ মামলার ৪ জন আসামী বর্তমানে হাজতে রয়েছে। বাকী ১১ জন আসামী কিছুদিন পর জামিনে মুক্তি পেয়েছে। বাদী পক্ষের অভিযোগ জামিনপ্রাপ্ত আসামীরা মামলাটি তুলে নেওয়ার জন্য তাদের বিভিন্ন সময় হুমকি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে যাচ্ছে। এ নিয়ে তারা নেত্রকোনা মডেল থানায় ২টি জিডি করেছেন। সর্বশেষ জিডি করা হয় ৩০ আগষ্ট।

মামলার বাদী ওহেদ মিয়া গত শুক্রবার সাংবাদিকদের জানান, আমার বোন হত্যামামলার প্রধান আসামী সোহেলকে পুলিশ গ্রেপ্তার করতে পারছে না। জামিনে মুক্তি আসামীদের অত্যাচারে ও হুমকিতে বাড়িতে থাকা খুব কষ্টকর হয়ে দাড়িয়েছে। যেকোন সময় ওরা আমাদের বাড়িতে হামলা চালাতে পারে। এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে শাহীনুরের পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। সার্বিক বিষয়ে পরিবার জেলা পুলিশ সুপার মোঃ আকবর আলী মুন্সির কাছে মৌখিকভাবে অভিযোগ দিয়েছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি’র উপ-পরিদর্শক (এস আই) শরিফুল হক বলেন, আমরা বিষয়টি নিয়ে খুবই আন্তরিক। মামলার প্রধান আসামী সোহেলকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
নেত্রকোনা জেলা পুলিশ সুপার আকবর আলী মুন্সি বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবহিত আছি। পুলিশ প্রধান আসামীকে গ্রেপ্তার করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আশা করি অতি দ্রæত তাকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে। শাহীনুরের পরিবারের নিরাপত্তার বিষয়টিও বিশেষভাবে লক্ষ রাখছি।