বিভাগীয় কমিশনারের নেতৃত্বে ময়মনসিংহ মহানগরীতে পরিচ্ছন্নতা অভিযান ২৪ আগস্ট

মো. নজরুল ইসলাম, ময়মনসিংহ :
এডিস মশার কামড়ে তীব্র ডেঙ্গুজ্বর এবং চিকনগুনিয়ার হাত থেকে রক্ষা পেতে বাসাবাড়ি, বিপনিবিতান, হাট-বাজারের আশপাশসহ নগরীর সর্বত্র পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার মাধ্যমে ময়মনসিংহকে একটি ক্লিনসিটি উপহার দেওয়ার লক্ষ্যে ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমানের উদ্যোগে প্রায় ২ হাজার স্কাউট, শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও স্বেচ্চাসেবীর এক বিশাল লোকবল আগামী ২৪ আগষ্ট শনিবার দিনব্যাপী পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও সচেতনতামূলক কর্মসূচীতে অংশ নেবেন। স্কাউট সদস্যরা পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমের পাশাপাশি বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিজেদের আশপাশ নিয়মিত পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য পরামর্শ ও সচেতনতার জন্য উদ্ধুদ্ধ করবে। বিভাগীয় কমিশনার খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসক, জেলা প্রশাসনের ম্যাজিস্ট্রেটবৃন্দ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের অফিসার, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এই অভিযানে যোগদান করবেন।

আগামী ২৪ আগষ্ট শনিবার দিনব্যাপী পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান সফল করার লক্ষ্যে বুধবার দুপুরে এক প্রস্তুতি সভা বিভাগীয় কমিশনার খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) নিরঞ্জন দেবনাথের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয়। সভার বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক একেএম গালিভ খান, সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, বিভাগীয় পরিচালক স্বাস্থ্য ডাঃ আবুল কাশেম, মাধ্যমিক উচ্চ শিক্ষা বিভাগের উপ-পরিচালক আবু নূর মোঃ আমিনুল ইসলাম চৌধুরী, প্রাথমিক শিক্ষার উপ-পরিচালক মোঃ আনোয়ার হোসেন, ময়মনসিংহ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও স্কাউট জেলা সম্পাদক মোঃ হাফিজুর রহমান, সিটি কর্পোরেশন কাউন্সিলর মোঃ মাহাবুবুল আলম হেলাল, আসিফ হোসেন ডন, মোঃ গোলাম রফিক দুদ, সৈয়দ শফিকুল ইসলাম মিন্টু, মোঃ ফরহাদ আলম প্রমূখ।

ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক একেএম গালিভ খান জানান, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই অভিযানে সহযোগিতা দেয়া হবে। এতে কালেক্টরেটের এডিসি, ম্যাজিস্ট্রেটম জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ এ অভিযানে অংশ নেবেন।
সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন জানান সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটুর সরাসরি নেতৃৃত্বে শহরে ব্যাপক পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান অব্যাহত রয়েছে। শহরের ৩৩টি ওয়ার্ডে ১৬টি ফগার মেশিন ও ১৮টি স্প্রেমেশিন দিয়ে ৫১২ জন পরিচ্ছন্ন কর্মী, বিডিক্লিনের স্বেচ্ছসেবী প্রতিদিন কাজ করছে। এসব কাজের দেখাশুনা করছেন কাউন্সিলর মনিটরিং টীম।

সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও স্কাউট জেলা সম্পাদক মোঃ হাফিজুর রহমান জানান, নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ডের প্রত্যেকটিতে ৩টি করে মোট ৯৯টি স্কাউট দলে বিভক্ত হয়ে পাঁচ শতাধিক স্কাউট পরিচ্ছন্ন কাজে সরাসরি অংশ নেবে। এসব টীমের মনিটরিং ও ট্যাগ অফিসার হিসেবে কাজ করবেন ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষাকগণ। এছাড়াও আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে ৫০জন শ্রমিক দেবেন তিনি।