গৌরীপুর স্টেশনে বিশ্রামাগারে তালা ট্রেনযাত্রীদের দুর্ভোগ

শফিকুল ইসলাম মিন্টু, গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) সংবাদদাতা: ময়মনসিংহের গৌরীপুর রেলওয়ে জংশন স্টেশনে নেই পর্যাপ্ত বাতি, রাতের বেলা থাকে আলো-আধারির খেলা। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির বিশ্রামাগার দুটি থাকে তালাবদ্ধ। এতে রাতের বেলায় ভ্রমণকারী ট্রেনযাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। হঠাৎ কোনো সময় রাতের বেলা দ্বিতীয় শ্রেণির বিশ্রামগারটি খোলা থাকলেও নোংরা ও র্দুগন্ধ পরিবেশের কারণে যাত্রীরা বিশ্রামাগার ব্যবহার করতে চান না। এজন্য সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে নারীযাত্রীদের।

জানা গেছে, গৌরীপুর রেলওয়ে স্টেশন হয়ে প্রতিদিন ঢাকা-জারিয়া, ঢাকা-মোহনগঞ্জ, ময়মনসিংহ-চট্টগ্রাম এই ৩টি রুটে আন্তঃনগর, মেইল, কমিউটার ও লোকালসহ ৩২টি ট্রেন চলাচল করে। এ সব ট্রেনে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রী চলাচল করে। কিন্ত রাতের বেলা বিশ্রামাগার বন্ধ থাকায় যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। আলো-আধারির মাঝে বসে থাকতে হয় এখানে সেখানে।

১৮ আগস্ট (রোববার ) রাত ১টা ৩০ মিনিটে গৌরীপুর রেলওয়ে জংশনে গিয়ে দেখা যায় প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির বিশ্রামাগার দুটি তালাবদ্ধ। ট্রেনযাত্রীরা প্লাটফরমের বিভিন্ন জায়গায় অন্ধকারে ছড়িয়ে ছিটিয়ে বসে আছে। অনেক যাত্রী টিকিট কাউন্টারের সামনে নোংরা মেঝেতে কাঁথা কিংবা চাদর বিছিয়ে শুয়ে আছে। কিছু যাত্রী বসার জায়গা না পেয়ে মালপত্র নিয়ে পায়চারি করছে। ট্রেন না আসা পর্যন্ত এভাবেই অপেক্ষা করতে হবে বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগী ট্রেনযাত্রীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নারী যাত্রী বলেন, বিশ্রামাগার বন্ধ থাকায় রাতের বেলা প্রাকৃতিক কাজ সারতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বাধ্য হয়েই এখন নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে অন্ধকারে বসে আছি। এই হচ্ছে গৌরপুর স্টেশনে যাত্রীদের সেবার মান। গৌরীপুর উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান ফকির বলেন, বিশ্রামাগার বন্ধ থাকায় যাত্রীরা মালপত্র নিয়ে বাইরে আশ্রয় নেয়ায় স্টেশনে চুরি ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। নারী যাত্রীরা বখাটেদের উৎপাতের শিকার হচ্ছে। এতে করে এই স্টেশনে যাত্রীসেবার মান দিন দিন কমে যাচ্ছে। সেবার মান বাড়াতে এই চিহ্নিত সমস্যাগুলো সমাধানে কর্তৃপক্ষের উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন।

এ বিষয়ে বক্তব্য নেয়ার জন্য রাতে গৌরীপুর রেলওয়ে জংশনের স্টেশন মাস্টার আব্দুর রশিদের মুঠোফোনে চেষ্টা করে সংযোগ পাওয়া যায়নি। তবে রাতের শিফটে স্টেশনের বুকিং সহকারির দায়িত্বে থাকা রাজিব জানিয়েছেন প্রথম শ্রেণির বিশ্রামাগার বন্ধ থাকলেও দ্বিতীয় শ্রেণির বিশ্রামাগার খোলা থাকার কথা। কিন্ত আজ কেনো বন্ধ বলতে পারছিনা।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম/জাহিদ।