শোলাকিয়ায় ঈদের নামাজ সকাল সাড়ে ৮টায়

নিউজ ডেস্ক:   কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহে পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ শুরু হবে সকাল সাড়ে ৮টায়। এ বছর অনুষ্ঠিত হবে ১৯২তম জামাত। অন্যান্য বছর সকাল ৯টায় ঈদুল আযহার নামাজ শুরু হলেও এবছর কোরবানি দেয়ার সুবিধার্থে নামাজ আদায়ের সময় আধা ঘণ্টা এগিয়ে আনা হয়েছে।

ইতিমধ্যে শান্তিপূর্ণভাবে নামাজ আদায়ের জন্য মাঠের পরিচর্যাসহ সব ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে ঈদগাহ পরিচালনা কমিটি। পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকেও গ্রহণ করা হয়েছে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

পবিত্র ঈদুল ফিতরে দেশের সর্ববৃহৎ জামাত অনুষ্ঠিত হয় এই ঈদগাহে। তবে এই ঈদে কোরবানির কারণে ঈদুল ফিতরের তুলনায় মুসল্লির সংখ্যা কম হয়। নামাজ শেষে কোরবানি দেয়ার কারণে দূর-দূরান্তের মুসল্লির উপস্থিতি থাকে খুবই কম। তবুও জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও সংলগ্ন জেলাগুলো থেকে উল্লেখযোগ্য মুসল্লিরা এসে নামাজ আদায় করে থাকেন। বাংলাদেশ রেলওয়ে ঈদের দিন মুসল্লিদের আসা-যাওয়ার সুবিধার জন্য ‘শোলাকিয়া স্পেশাল’ নামে দুটি বিশেষ ট্রেন চালুর ব্যবস্থা করেছে। ভৈরব ও ময়মনসিংহ রেলস্টেশন থেকে ঈদুল আজহার দিন ভোরে ট্রেন দুটি কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসবে এবং নামাজ শেষে কিশোরগঞ্জ থেকে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। তাছাড়াও সিএনজি চালিত অটো-মাইক্রোবাসসহ বিভিন্ন যানবাহনে এসে মুসল্লিরা ঈদের জামাতে শরীক হবেন।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মাশরাকুর রহমান খালেদ জানান, মুসল্লিদের সার্বিক নিরাপত্তা দিতে সারা মাঠ ও শহর জুড়ে তিন স্তরের নিরাপত্তা গ্রহণ করা হয়েছে। কোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে সেকারণে নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে ৮টি সেক্টরে ভাগ করে ৩২টি চেকপোস্ট বসানো হবে। পোশাকে এবং সাদা পোশাকে সহস্রাধিক পুলিশ দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবে। তাছাড়াও নিরাপত্তা নিশ্চিদ্র করতে দায়িত্ব পালন করবে র‌্যাব, আর্মড পুলিশ ব্যাটেলিয়ান ও বিজিবি। গতিবিধি পর্যবেক্ষণের জন্য মাঠে থাকবে ছয়টি ওয়াচ টাওয়ার ও পর্যাপ্ত সিসি ক্যামেরা। বোম্ব ডিসপোজাল টিমও মাঠে দায়িত্ব পালন করবে।

জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরী জানান, ঈদুল আজাহার জামাতের জন্য শোলাকিয়া ঈদগাহ সম্পূর্ণ প্রস্তুত। আগের দিনে আসা দূর-দূরান্তের মুসল্লিদের জন্য থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করবে ঈদগাহ পরিচালনা কমিটি। ঈদের দিন মাঠে সিভিল সার্জনের নেতৃত্বে একটি ভ্রাম্যমাণ মেডিক্যাল টিম নিয়োজিত থাকবে।

এ বছর জামাতে ইমামতি করবেন শহরের মারকাস মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা হিফজুর রহমান। আখড়া বাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মো: তৈয়বকে বিকল্প ইমাম হিসেবে রাখা হয়েছে।