প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্নতা অভিযান চাই: কাদের

নিউজ ডেস্ক:   ফটোসেশনের জন্য নয় যথাযথভাবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নামতে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, আমরা ঢাকা সিটির প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্নতা অভিযান চাই। নেত্রী এটা জানতে চেয়েছেন। আপনাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করুন। নেত্রী কিন্তু বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে মনিটরিং করছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক জরুরি সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ডেঙ্গু মোকাবিলায় পরিচ্ছন্নতা অভিযান জোরদার করার লক্ষ্যে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ, দলীয় সংসদ সদস্য, থানা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং নির্বাচিত কাউন্সিলরদের নিয়ে জরুরি সভার আয়োজন করে দলটি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এর আগে দেশব্যাপী পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করার কথা তুলে ধরে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা আমরা মীন করতে চাই যে, কর্মসূচিটি আমরা সিনসিয়ারলি এবং সিরিয়াসলি পালন করছি। জনস্বার্থে, আমাদের দলের স্বার্থে, নেত্রীর নির্দেশনায় দেশের স্বার্থে এই কাজটি আমরা করছি।’

ঢাকাতে প্রতিদিনই ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ছে দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এই সংখ্যা আমরা যতটা নিজে নিয়ন্ত্রণের কথা বলি না কেন এখনও এটা নিয়ন্ত্রণে আসে নাই। এটা হলো বাস্তবতা।

আসন্ন ঈদে ঢাকা সিটি থেকে মানুষ গ্রামমুখী হবে। এ কারণে সেখানেও ডেঙ্গুর বিস্তার ঘটার আশঙ্কা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘রাজনৈতিক দল হিসেবে আমাদের প্রথম কাজই হচ্ছে সচেতন করা।’ এছাড়া এডিস মশার বংশ বিস্তার, প্রজনন ক্ষেত্র ধ্বংস, এলাকা ও কর্মস্থল পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার আহ্বান জানান তিনি।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘যারা পরিচ্ছন্ন অভিযান পরিচালনা করেননি আমি তাদের চিহ্নিত করে লজ্জা দিতে চাই না। শুধু বলতে চাই, মন থেকে এই কাজটা করতে হবে। আমাদের একজন নেতা আছেন, তিনি শেখ হাসিনা। তার নির্দেশ আমাদের মেনে চলতে হবে। যারা করেছেন ধন্যবাদ। অব্যাহত রাখবেন। আর যারা প্রোগ্রাম করেননি, প্লিজ আপনারা আপনাদের ওপর আরোপিত দায়িত্ব পালন করবেন।’

মহানগরের ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সিটি কাউন্সিলরকে সহযোগিতা করার পাশাপাশি সক্রিয়ভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এডিস মশা ভয়ঙ্কর, এরা কামড় দিতে চেহারার দিকে তাকায় না। আপনি কাউন্সিলর, মন্ত্রী, এমপি নাকি মেয়র কোন দিকে তাকাবে না। সুযোগ পেলে রক্ত খাবে, মেয়রেরও রক্ত খাবে, মন্ত্রীর রক্ত খাবে, এমপির রক্ত খাবে, নেতার রক্ত খাবে-কাউকে ছাড়বে না।’

সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমাদের সবাইকে সতর্ক হতে হবে সাবধান হতে হবে এবং আমাদের করণীয় যথাযথভাবে পালন করতে হবে।

সভায় আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাহারা খাতুন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, এনামুল হক শামীম, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, কার্যনির্বাহী সদস্য কামরুল ইসলাম, এসএম কামাল হোসেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন, মহানগর দক্ষিণের সভাপতি আবুল হাসনাত, সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান, হাজী মোহাম্মদ সেলিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।