শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে দুর্দান্ত জয় পেল বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক:   শুরুটা ভালো না হলেও শেষমেষ টাইগারদের সামনে ২৮৩ রানের বড় টার্গেট দেয় শ্রীলঙ্গা। এ টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৪৫ রানের মাথায় সৌম্য সরকারকে হারায় বাংলাদেশ। কুমারার বলে আপনসোকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সৌম্য সরকার। আউট হওয়ার আগে বলে ১৩ রান করেন তিনি।

এরপর মোহাম্মাদ মিথুনকে নিয়ে তামিম ইকবাল ১৩ রানের জুঁটি গড়ে আউট হন তামিম ইকবাল। তার ব্যাট থেকে আসে ৪৭ বলে ৩৭ রান।

তবে শেষ পর্যন্ত ৪৮.১ ওভারে ৫ উইকেটে ২৮৫ রান করে জয়ের বন্দরে পৌছে যায় বাংলাদেশ। বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ৯১ রান করেন মিথুন। মুশফিকের ব্যাট থেকেও আসে ৫০ রান। এই জয়ে মূল সিরিজের আগে ভালই প্রস্ততি সাড়লো বাংলাদেশ।

এরআগে ধীরে শুরু করেও শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশকে ২৮৩ রানের বড় লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছে শ্রীলঙ্কা বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশ। ১৪৬ রানে ৬ উইকেট হারানো লঙ্কানদের বিপর্যয়ে থেকে টেনে তুলে ঝড়ো ব্যাটিংয়ে রানের বড় ভিত গড়ে দিয়েছেন ৬৩ বলে ৮৬ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলা দানুস্কা সানাকা। ৬টি ছক্কা ও ৬টি চারের মারে ১৩৬.৫০ স্ট্রাইক রেডে এই ইনিংস খেলেন তিনি।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) বাংলাদেশ সময় বেলা পৌনে ১১টায় কলম্বোর পি সারা ওভালে টসে জিতে বাংলাদেশকে ফিল্ডিং করার আমন্ত্রণ জানান শ্রীলঙ্কা বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশের অধিনায়ক নিরোশান ডিকওয়েলা।

বল হাতে শুরুটা মন্দ হয়নি টাইগারদের। দলীয় মাত্র ১ রানেই লঙ্কান অধিনায়ককে ফেরান রুবেল হোসেন। দলীয় ২৮ রানে ওসাডা ফার্নান্দোকে নিজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত করেন রুবেল। এর পর দলীয় ৩২ রানে দানুস্কা গুনাতিলকাকে ফেরান তাসকিন।

এর পর ভানুসা রাজাপাকসে ও সিহান জয়াসুরিয়া মিলে ৮২ রানের জুটি গড়ে দলকে খাদের কিনার থেকে টেনে তুলেন। ৩২ রান করা রাজাপাকসে ও ৫৬ রান করা জয়াসুরিয়াকে পর পর আউট করে বাংলাদেশকে আবারও ম্যাচে ফেরার সৌম্য সরকার। ৭ রান করে মোস্তাফিজের শিকার হন অ্যাঞ্জেলো পেরেরা।

দলীয় ১২৭ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর এক প্রান্ত আগলে রেখে লঙ্কানদের স্কোর বোর্ডকে সচল রাখেন দানুস্কা সানাকা। ৩০ বলে ২৮ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলে দানুস্কাকে যোগ্য সঙ্গ দেন ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা।

শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২৮২ রান তুলেন লঙ্কানরা। যেখানে শেষ ৫ ওভারেই আসে মূল্যবান ৫১টি রান।

টাইগার বোলারদের মধ্যে রুবেল ও সোম্য ২টি করে, তাসকিন, মোস্তাফিজ ও মোসাদ্দেক নেন ১টি করে উইকেট।