বরিস জনসনই নতুন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:  ব্রিটেনর নতুন প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন ব্রেক্সিটপন্থি বরিস জনসন। কনজারভেটিভ পার্টির লিডার হিসেবে আনুষ্ঠানিক ভাবে নির্বাচিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিশ্বের অন্যতম ক্ষমতাধর দেশের ৭৭তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নাম লেখালেন বরিস জনসন। মঙ্গলবার ব্রিটেন সময় দুপুর ১২টায় বরিস জনসনের নাম ঘোষণা করা হয় কনজারভেটিভ দলের প্রধান হিসেবে। পার্টির সদস্যদের সরাসরি ভোটে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন।

বরিস জনসন ৯২১৫৩ ভোট পেয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী জেরেমি হান্ট পেয়েছেন ৪৬৬৫৬ ভোট। মোট ভোট দেওয়া হয়েছে ১ লাখ ৬০ হাজার। ৮৭.৪০ শতাংশ ভোট কাস্টিং হয়েছে বলে জানিয়েছে দলটি। নির্বাচিত হয়ে বরিস তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, তিনি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছেন দল ও দেশের কাজে নিয়োজিত হয়ে। তিনি তার প্রতিদ্বন্দ্বী জেরেমি হান্ট ও বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

এদিকে বরিস নির্বাচিত হওয়ার ব্যাপারে মিডিয়া ও নানা সংস্থার জরিপে আগেই নিশ্চিত হওয়া গিয়েছিল। মঙ্গলবারের ঘোষণা ছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতা। তবে বরিসের এই নির্বাচিত হওয়া মেনে নিতে পারেননি দলের অনেক শীর্ষনেতা। গত কয়েক দিনে কট্টর ব্রেক্সিটপন্থি বরিস জনসন প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন, এমন খবরে আতঙ্ক ছিল বর্তমান মন্ত্রিসভায়। তিনি প্রধানমন্ত্রী হলে মন্ত্রিসভা ছাড়বেন বলে এরই মধ্যে ঘোষণা দিয়েছেন শীর্ষ দুই মন্ত্রী।

এ ছাড়া গত সোমবার একজন প্রতিমন্ত্রী পদত্যাগও করেছেন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে বিচ্ছেদ (ব্রেক্সিট) কার্যকরে বরিসের কঠোর অবস্থানের বিরোধিতা করে রবিবার যে দুজন মন্ত্রিপরিষদ ছাড়ার ঘোষণা দেন, তারা হলেন অর্থমন্ত্রী ফিলিপ হ্যামন্ড ও বিচারবিষয়ক মন্ত্রী ডেভিড গোয়েক। সোমবার পদত্যাগ করেন পররাষ্ট্র ও কমনওয়েলথ দফতরের প্রতিমন্ত্রী অ্যালান ডানকান। ব্রেক্সিট কার্যকর করা নিয়ে সৃষ্ট গৃহবিবাদের জেরে কনজারভেটিভ দলের নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়াতে বাধ্য হন প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে। গত ৭ জুন তিনি দলীয় প্রধানের পদ ছাড়েন।

বুধবার বাকিংহাম প্রাসাদে রানীর কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন মে। সেই সঙ্গে রানীর কাছ থেকে নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব বুঝে নিলেন বরিস জনসন। বরিস জনসন এর আগে ২০০৮ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত দুবার লন্ডন মেয়র ছিলেন। এ সময় লন্ডন ট্রান্সপোর্টসহ বিভিন্ন সংস্কার করেন তিনি। ২০১৬ সালে তিনি আবারও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০১৮ সাল পর্যন্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৮ সালের জুলাই মাসে ব্রেক্সিট নিয়ে মতপার্থক্য হওয়ায় তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেন।

২০১৯ সালের ১৬ মে ঘোষণা দেন দলের প্রধান হিসেবে তিনি নির্বাচন করবেন। সেই ঘোষণার ৬৮ দিনের মাথায় দলের প্রধান নির্বাচিত হওয়ার মধ্য দিয়ে তিনি দেশের ৭৭তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করলেন।