গণপিটুনি বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্র: আইনমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:   আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, সম্প্রতি দেখা যাচ্ছে কোন একটা ঘটনা ঘটলে তারপর কিছুদিন ওই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে। যেমন পুরান ঢাকায় অগ্নিকাণ্ডের পরবর্তী কিছুদিনের মধ্যে পরপর কয়েকটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলো। আবার পরপর কয়েকটি ধর্ষণের ঘটনা ঘটলো। এখন আবার গণপিটুনি দিয়ে সাধারণ মানুষকে মেরে ফেলার ঘটনা ঘটছে।

তিনি বলেন, এগুলো নিছক দুর্ঘটনা নয়। এগুলো আসলে বিএনপি-জামায়াত-শিবিরের নিখুঁত ষড়যন্ত্র। তাই এ ব্যাপারে আমাদের সজাগ থাকতে হবে। সোমবার নেত্রকোণায় জেলা আইনজীবী সমিতির পাঁচতলা বিশিষ্ট নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালের পর দীর্ঘ সময় দেশে আইনের শাসন ছিল না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, আইনের শাসন একদিনে প্রতিষ্ঠা হয় না। যে দেশকে (যুক্তরাজ্য) আইনের শাসনের উদাহরণ হিসেবে মনে করা হয়, সেখানেও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে দুইশ বছর সময় লেগেছে। তিনি বলেন, টকশোতে সমালোচনা করা হয় যে, বাংলাদেশে আইনের শাসনের দুর্বলতা আছে। তাদের বোঝা উচিত বাংলাদেশের স্বাধীনতার বয়স কত এবং এর মধ্যে কত বছর এদেশে সামরিক শাসন চলেছে। আর কত বছর আইনের শাসনের পরিপন্থী ইনডেমনিটি আইন বলবৎ ছিল।

আইনমন্ত্রী বলেন, সংসদের আগামী অধিবেশনে ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনাল আইন সংশোধন করে যুগ্ম জেলা জজের পাশাপাশি সহকারী জজ ও সিনিয়র সহকারী জজকে ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালের মামলা পরিচালনার এখতিয়ার দেওয়া হবে।

সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সিতাংশু বিকাশ আচার্য এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অসীম কুমার উকিল এমপি, হাবিবা রহমান খান শেফালী এমপি, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান, নিবন্ধন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক খান মো. আবদুল মান্নান, আইন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব বিকাশ কুমার সাহা, নেত্রকোণার জেলা জজ আবু মো. আমিমুল এহসান প্রমুখ বক্তৃতা করেন। এরপর নেত্রকোনা জেলা জজ আদালতে সেখানকার বিচারকদের সঙ্গে বৈঠক করেন আইনমন্ত্রী। বৈঠকে তিনি বিচারকদের দ্রুত বিচারসেবা প্রদানের অনুরোধ জানান।

তিনি বলেন, দ্রুত বিচার সেবা না দিলে জনগণ স্ট্রিটজাস্টিস প্রথায় নেমে পড়বে।