বিশ্বকাপে স্ত্রীকে সঙ্গে রেখে শাস্তির মুখে ভারতীয় ক্রিকেটার

নিউজ ডেস্ক:   অনুমতি না থাকার পরও বিশ্বকাপে স্ত্রীকে নিজের সঙ্গে হোটেলে রেখে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক ভারতীয় ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে। স্ত্রীকে নিজের সঙ্গে রাখতে অনুরোধ করেছিলেন প্রশাসক কমিটিকে। কিন্তু তা খারিজ হওয়া সত্ত্বেও স্ত্রীকে সঙ্গেই রেখে দেন ওই ক্রিকেটার।

অভিযুক্ত ওই খেলোয়াড় মহেন্দ্র সিং ধোনি হতে পারেন বলে ধারণা করছেন অনেকে। তবে এখনো বিষয়টি নিশ্চিত করেনি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)।

ভারতীয় গণমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে ১৫ দিনের জন্য স্ত্রী ও গার্লফেন্ড বা পরিবারকে সঙ্গে রাখার ছাড়পত্র পেয়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। কিন্তু এই নির্দিষ্ট সময়ের বাইরেও স্ত্রীকে সঙ্গে রাখতে অনুরোধ জানিয়েছিলেন এক ক্রিকেটার। কিন্তু তার আবেদন খারিজ করে দেয় প্রশাসকদের কমিটি। তারা স্পষ্ট জানায়, বিসিসিআইয়ের নিয়ম মেনে তা সম্ভব নয়। কিন্তু আবেদন খারিজ হলেও পাত্তা দেননি ওই ক্রিকেটার।

ধারণা করা হচ্ছে, ওই সিনিয়র খেলোয়াড় হতে পারেন ধোনি। কারণ ২৬ জুন পর্যন্তু খেলোয়াড়দের সঙ্গে স্ত্রী ও পরিবারের সদস্যদের যোগ দেওয়ার অনুমতি ছিল না। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষের ম্যাচে ধোনির স্ত্রী-কন্যাকে ভারতীয় দলকে উৎসাহ দিতে দেখা গেছে।

এ ছাড়াও ৭ জুলাই টিম হোটেলে ধোনির জন্মদিন পালনের সময়ও দেখা গেছে তার স্ত্রী-কন্যাকে। এমনকি টিম হোটেলে উদযাপন করা জন্মদিনের ছবিও ধোনির স্ত্রী তার ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে আপ করেছেন। তবে এখনো নিশ্চিত নয়, অভিযুক্ত ওই সিনিয়র খেলোয়াড় ধোনি কি না?

বিশ্বকাপের পুরোটা সময় সাত সপ্তাহ ধরে টিম হোটেলেই স্ত্রীকে সঙ্গে রেখেছিলেন ওই ক্রিকেটার। দলের সিনিয়র সদস্য হওয়ায় অন্যরা কোনো কিছু বলতে সাহস পাননি।

এদিকে আবেদন খারিজ হওয়ার পরও অভিযুক্ত ক্রিকেটার স্ত্রীকে হোটেলে রেখে দিলেন কীভাবে? এজন্য টিম ম্যানেজমেন্টের ভূমিকা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। একই সঙ্গে বিসিসিআইয়ের নিয়ম লঙ্ঘন করাটা ভালো চোখে দেখছে না প্রশাসক কমিটি।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে ওই ক্রিকেটারের ব্যাখ্যা চাওয়া হতে পারে। তবে সন্তোষজনক ব্যাখ্যা না পেলে তাকে শাস্তি দেওয়া হতে পারে বলেও জানিয়েছে বিসিসিআইয়ের একটি সূত্র।