নারী-শিশু নিপীড়নের বিরুদ্ধে জাতীয় জাগরন গড়ে তুলুন

dav

নিউজ ডেস্ক:    আইনের প্রায়োগিক ব্যবস্থার ত্রুটিজনিত কারণে নারী ও শিশু নির্যাতনের ভয়াবহতায় দেশের মানুষ দিশেহারা। প্রতিদিন গণমাধ্যমে প্রকাশিত নারী ও শিশু নির্যাতনের বিপরীতে নিপীড়ক ও সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা না নেওয়ায় সমাজে নারী ও শিশু নির্যাতনের বহুমাত্রিকতা আজ মহামারী আকারে দেখা দিয়েছে। বিবেকবান মানুষ, অভিবাবক, স্কুল কলেজে পড়–য়া ছাত্র-ছাত্রীসহ দেশবাসী এখন শংকিত। এই অবস্থা দেশের সামুগ্রীক উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্থ করবে। বিশেষ করে ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোমলমতি শিশুদের নিপীড়নের যে ঘটনা প্রবাহ ইতোমধ্যে প্রকাশিত হয়েছে তাতে করে অভিবাবক মহলে ধর্মীয় শিক্ষার প্রতি নতুন করে আস্থাহীনতা তৈরী করবে।

এছাড়াও ঘরে বাইরে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অভিবাবকতুল্য শিক্ষক ও সন্ত্রাসীদের দারা ছাত্র-ছাত্রীদের উপর নিপীড়ন, ধর্ষন, হয়রানীর ঘটনা সারা দেশের মানুষকে আতংকিত করে তুলেছে। রাষ্ট্রীয় বিধিব্যবস্থায় উপযুক্ত আইন থাকার পরও আইনের প্রায়োগিক দুর্বলতা স্বার্থবাদী গোষ্ঠীর হয়রানি, সন্ত্রাসবাদীদের আশ্রয় প্রশ্রয় দেয়ার কারনে দিন দিন নারী-শিশু নিপীড়ন, ধর্ষনের ঘঠনা বর্তমানে ভয়াবহ আকার ধারন করেছে। নিপীড়ন ও দানবীয় সভ্যতা বিবর্জিত, ধর্ষনমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠায় জাতীয় জাগরণ গড়ে তোলা এখন সময়ের দাবি। সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের উদ্যোগে দেশের সর্বত্র ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, অভিবাবক, কৃষক, শ্রমিক, বিবেকবান নাগরিক সমাজ, রাজনৈতিক সংগঠন, সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিবর্গ ও বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষদের, যৌন নিপীড়নসহ সকল বঞ্চনার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবান আমাদের।

১০ জুলাই বিকাল ৫টায় সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়, বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশন, রুম-১, পশ্চিম গ্যালারী কেন্দ্রীয় কমিটির ঢাকাস্থ নেতৃবৃন্দের সভায় উপরোক্ত মন্তব্য করা হয়। সংগঠনের সভাপতি জিয়াউদ্দিন তারেক আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য পঙ্কজ ভট্টাচার্য, ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, এডভোকেট এসএমএ সবুর, খুশি কবীর, জয়ন্তী রায়, ডা. অসিত বরণ রায়, সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক একে আজাদ, সানোয়ার হোসেন সামছী, কাজী সালমা সুলতানা, জহিরুল ইসলাম জহির, সম্পাদক মন্ডলী সদস্য মামুনুর রশিদ, এডভোকেট পারভেজ হাসেম, সাজেদুল আলম রিমন, বিপ্লব চাকমা, কেন্দ্রীয় নেতা ড. সেলু বাসিত, আব্দুল ওয়াহেদ, সেলিম রেজা, এম. শফিউর রহমান খান বাচ্চু, হানিফ মিয়া, বেলায়েত হোসেন প্রমুখ।

সভায় পঙ্কজ ভট্টাচার্য বলেন, যে রাষ্ট্রটি মুক্তিযুদ্ধের বিশাল ত্যাগের মধ্যদিয়ে অর্জিত হয়েছে, তা আজ সময়ের ব্যবধানে তার মূল ভিত্তি থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। আমরা বিষ্ময়ের সাথে লক্ষ্য করছি সরকার ও প্রশাসন এখন লুটেরা শ্রেণী, ধর্মব্যবসায়ী, সন্ত্রাসবাদী, কালোবাজারী ও মুনাফালোভী মজুদদারদের পৃষ্ঠপোষকতা করছে। উৎপাদনের সাথে জড়িত কৃষকরা এখন দিশেহারা। তাদের উৎপাদিত খাদ্য শষ্যের উপযুক্ত মূল্য থেকে তারা বঞ্চিত এবং ক্ষুব্ধ ও হতাশাগ্রস্থ। রাষ্ট্রে এখন যুক্তি, মুক্তবুদ্ধি ও বিবেকের শাসন অনুপস্থিত। শুধুমাত্র কথামালার ফুলঝুড়িতে যে সমাজে শান্তি ও স্থিতিশীলতা আসেনা তা বুঝার ক্ষমতাও এখন রাষ্ট্রনায়করা হারাতে বসেছে। প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার যে সংস্কৃতি তা থেকে এখনো ক্ষমতাসীনরা বের হতে পারেনি। তাদের আচারণ ও কথাবার্তায় সে বিষয়টি স্পষ্ট ভাবে প্রতীয়মান হচ্ছে।

স্বস্ব ক্ষেত্রে দায়িত্বশীল হওয়া কতটা জরুরী দেশের এই মহা দুর্যোগে তা ফুটে উঠে, নতুবা একটি দেশের প্রধানমন্ত্রীকে কি করে ছোটখাটো বিষয়ে ভ‚মিকা রাখতে হয়, তা হলে মন্ত্রী পরিষদের বাকী সদস্যদের কেন জনগণের কষ্টার্জিত টাকায় পুষতে হয়। এতে করে প্রমাণিত হয় রাষ্ট্রকে অচল ও অথর্ব করার গভীর ষড়যন্ত্র নতুবা অন্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব প্রাপ্তরা কতটা দায়িত্বহীন তা প্রমাণ করে। এখানে যৌক্তিক কারণ ছাড়া গ্যাসের দাম বাড়াতে হবে কেন? বিশ্ব বাজারে তেল-গ্যাসের দাম কমে, আমরা কারস্বার্থে দাম বাড়াচ্ছি তার ব্যাখ্যা নেই কর্তৃপক্ষের। নারী-শিশু, সংখ্যালঘু, আদিবাসী নিপীড়নের কার্যকর প্রতিকার যে সমাজে নেই তা যেমন মানবিক সমাজ না তা গণতান্ত্রিক সমাজও হতে পারেনা। আমরা কল্যাণ রাষ্ট্র তৈরীর জন্য লড়াই করে আজ সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ, লুটেরাদের কাছে জিম্মি হতে বসেছি। এই অবস্থার পরিবর্তনে জাতীয় জাগরণ গড়ে তুলতে হবে।

অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, নিপীড়ক, ধর্ষক, সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ, লুটেরা একই সূত্রে গাঁথা। এদের মূল চালিকা শক্তি রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার দুর্বলতা। সরকার এই ক্রুটি চিহ্নিত করতে ব্যর্থ হলে মাফিয়া চক্র দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করবে, আমরা সরকারের শুভবুদ্ধি উদয় হোক এই কামনা করছি।