মৌলভীবাজার পাসপোর্ট অফিসের সেবায় সন্তুষ্ট সাধারণ মানুষ

এম শাহবান রশীদ চৌধুরী অনি মৌলভীবাজার প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের চিত্র এখন পাল্টে যেতে শুরু করেছে। মাত্র কয়েক মাসের প্রচেষ্টায় বর্তমানে পুরোটাই নিয়ন্ত্রণে এসেছে দালালদের দৌরাত্ম্য। পাশাপাশি বেড়েছে সাধারন গ্রাহক সেবার মান।

মৌলভীবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে সহকারী পরিচালক হিসেবে শামীম আহমেদ যোগদানের পর থেকে এ অফিসের সকল অনিয়ম, দালালদের দৌরাত্ম্য ও অপতৎপরতা বন্ধ এবং সাধারন গ্রাহকদের ভোগান্তির অবসানসহ সেবার মানও উন্নত হতে শুরু করেছে। সহকারী পরিচালক শামীম আহমেদের নেওয়া বাস্তব মুখী নানান পদক্ষেপের কারণে মৌলভীবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের চিত্র পাল্টে যেতে শুরু করেছে ।

পাসপোর্ট অফিসের মূল ফটক থেকে শুরু করে অফিসের সব যায়গায় লাগানো আছে একটি করে লিফলেট। যাতে লেখা রয়েছে অফিসের কেউ যদি আপনার নিকট অর্থ বা অবৈধ কিছু দাবী করে তবে সাথে সাথে সহকারী পরিচালককে অবহিত করুন। নিচে লেখা রয়েছে সহকারী পরিচালকের রুম নম্বর ও মোবাইল নম্বর।

সরেজমিনে মৌলভীবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে গেলে কথা হয় পাসপোর্ট করতে আসা সাধারন গ্রাহক ও অফিস স্টাফদের সাথে। এ সময় গ্রাহকেরা পাসপোর্ট অফিসের পরিবর্তনের জন্য সন্তোষ প্রকাশ করেন।

সহকারী পরিচালকের রুমের দরজায় লিখা রয়েছে ” সহকারী পরিচালকের কক্ষে প্রবেশের কোন অনুমতির প্রয়োজন নেই। এই অফিস আপনাদের। অফিসের নোটিশ বোর্ডে পাসপোর্টের ফরম পূরণের নমুনা কপি ও নিয়মাবলী লাগানো হয়েছে। বাহিরের জেনারেটর রুমের দেয়ালে সিটিজেন চার্টার লাগানো হয়েছে। এতে পাসপোর্ট করতে করনীয় সব ধরনের তথ্য রয়েছে। ফরম পূরণের নিয়মাবলী, যে সমস্ত ব্যক্তিরা সত্যায়িত করতে পারবেন তাদের পদাবলি, কোন কোন ব্যাংকে কত টাকা জমা দিবেন সেই তথ্যও দেয়া হয়েছে।

আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারি পরিচালক শামীম আহমেদ বলেন, যে কোনো মানুষ এসে সঠিকভাবে যেনো তাদের পাসপোর্ট করিয়ে নিতে পারে সেজন্য আমার রুম সবার জন্য উন্মুক্ত রেখেছি। এছাড়াও কেউ আমার স্টাফদের দ্বারা হয়রানির শিকার না হওয়ার জন্য অফিসের মূল ফটক থেকে শুরু করে সব জায়গায় সতর্কতা মূলক লিফলেট লাগিয়েছি।

তিনি বলেন, বর্তমানে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যেমে অনলাইনে আবেদন পত্র পূরণ করে গ্রাহকগণ সহজ ভাবে তাদের আবেদন পত্র জমা দিতে পারছে,যার ফলে গ্রাহকগণ বিভিন্ন ধরনের হয়রানি থেকে রেহাই পাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন বর্তমানে মৌলভীবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস দালাল মুক্ত আমরা দালালদের চিহ্নিত করেছি এবং তাদের দেখলেই তাড়িয়ে দেন বলে জানান এই কর্মকর্তা। আর একই সাথে মৌলভীবাজারবাসীকে দালালের কাছে না গিয়ে সরাসরি অফিসে গিয়ে পাসপোর্ট করার আহবানও জানান তিনি।