পশ্চিমবঙ্গের প্রস্তাবিত নাম ‘বাংলা’ খারিজ করল মোদি সরকার

epa05176453 Exterior view of the Indian parliament house seen in New Delhi, India 23 February 2016. Budget debate session of Indian parliament resumes with opposition parties set to corner the government on the various issues like Jawaharlal Nehru University (JNU) controversy. EPA/STR

নিউজ ডেস্ক:    পশ্চিমবঙ্গের নাম বদলে ‘বাংলা’ করার প্রস্তাব নাকচ করে দিলো কেন্দ্রীয় সরকার। আজ বুধবার পার্লামেন্টে প্রশ্নোত্তর পর্বের সময় একথা জানায় ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, রাজ্যের নাম ‘পশ্চিমবঙ্গ’ বদলে ‘বাংলা’ করার প্রস্তাব স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অনুমোদন করছে না বলে স্পষ্ট জানান প্রতিমন্ত্রী নিত্যানন্দ রায়। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সূত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এমন পদক্ষেপে অসন্তোষ জানিয়ে ইতিমধ্যেই দিল্লিতে ফোন করেছেন মমতা। রাজ্য সরকারের তরফে ফের কেন্দ্রকে চিঠি দেওয়া হবে বলেও জানা যাচ্ছে।

এর আগে, ২০১৬ সালে অক্টোবরে রাজ্যের নাম বদল করার প্রস্তাব গৃহীত হয় বিধানসভায়। রাজ্যের ‘পশ্চিমবঙ্গ’ নাম বদলে নতুন নাম রাখার বিষয়ে সম্মতি জানায় দলগুলো। বাংলা, ইংরেজি ও হিন্দি ৩টি ভাষায় ৩টি নাম বাছা হয়- বঙ্গ, বেঙ্গল ও বঙ্গাল। কিন্তু রাজ্যের সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয় কেন্দ্র। পৃথক পৃথক নাম নয়। ৩টি ভাষাতেই এক নাম হতে হবে বলে রাজ্যকে জানায় কেন্দ্র।

এরপরই রাজ্য সরকার রাজ্যের নাম তিন ভাষাতেই ‘বাংলা’ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়। সর্বসম্মতির ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়ে নাম বদলের সেই প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ের কাছে পাঠায় রাজ্য।

কিন্তু রাজ্যের নাম ‘বাংলা’ করার বিষয়ে সিলমোহর দিলো না কেন্দ্র। এই নিয়ে ৩ বার রাজ্যের নাম বদলের প্রস্তাব ফেরাল মোদি প্রশাসন। রাজ্যের নাম ‘বাংলা’ করার প্রস্তাব খারিজ করার ক্ষেত্রে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রতিবেশী বাংলাদেশের কথা উল্লেখ করেছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুক্তি, রাজ্যের প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশ। সেখানেও নামে ‘বাংলা’ রয়েছে। ফলে তা সমস্যা তৈরি করতে পারে। যদিও কেন্দ্রের যুক্তি মানছে না রাজ্য।

পাঞ্জাবের উদাহরণ তুলে ধরে পাল্টা প্রশ্ন করেছে রাজ্য সরকার। রাজ্যের যুক্তি, পাকিস্তানেও ‘পঞ্জাব’ নামে একটি রাজ্য রয়েছে। আবার এদিকে ভারতেও ‘পঞ্জাব’ নামে রাজ্য রয়েছে। তাতে যদি কোনো সমস্যা না হয়ে থাকে, তবে এক্ষেত্রে সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা অযৌক্তিক। কারণ পড়শি দেশের সম্পূর্ণ নাম বাংলাদেশ।

রাজ্যের নাম বদলের প্রস্তাব বার বার খারিজের বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে রাজনীতির অভিযোগ তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা।

কেন্দ্রের সিদ্ধান্তে হতাশা ব্যক্ত করেছেন সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ও। তার স্পষ্ট বক্তব্য, ‘বাংলা নাম খারিজের সিদ্ধান্ত ঠিক হলো না।’

প্রসঙ্গত, ‘পশ্চিমবঙ্গ’ নামটি ইংরাজিতে ‘ওয়েস্ট বেঙ্গল’ হওয়ায় বিভিন্ন সরকারি ক্ষেত্রে পরে সুযোগ পায় রাজ্য। নাম বদলে বাংলা হলে সেক্ষেত্রে ইংরাজিতে নাম শুরু হবে ‘বি’ দিয়ে (বাংলা)। ফলে সরকারি অনেক ক্ষেত্রে রাজ্য আগে সুবিধা পাবে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।