তাদের বৈঠকে ‘সুন্দর’ ভবিষ্যতের অঙ্গীকার

নিউজ ডেস্ক :    বিশ্বের সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ার লক্ষ্যে একসঙ্গে কাজ করতে রাজি হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। জাপানের ওসাকায় জি২০ সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের আগে আজ শুক্রবার এক ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে তিন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা এ অঙ্গীকার করেন।

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বিজয় গোখলে জানিয়েছেন, এই বৈঠকে ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের শান্তি, সমৃদ্ধি, যোগাযোগ ব্যবস্থা ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে পারস্পরিক সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

বৈঠক শেষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি এক টুইটে বলেন, আজকের বৈঠক অত্যন্ত ফলপ্রসূ হয়েছে। ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের যোগাযোগ ও অবকাঠামোগত উন্নয়নের বিষয়ে বিশদ আলোচনা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ও প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজস্ব মতামত দেওয়ায় তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।

দুই দিনব্যাপী জি২০ সম্মেলনকালে ভারত-মার্কিন-জাপান ত্রিপাক্ষিক বৈঠকের পাশাপাশি মোদি কথা বলেন ব্রিকস (ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন, দক্ষিণ আফ্রিকা) নেতাদের সঙ্গেও। মোদি তাদের বলেন, ‘সন্ত্রাসবাদ মানবতার কাছে সব থেকে বড় বিপদ। কেবল নিরীহ মানুষদের হত্যা করাই নয়, অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সামাজিক স্থিতিশীলতাকেও প্রভাবিত করে।’

ত্রিপক্ষীয় বৈঠক শেষে আলাদাভাবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে আলোচনায় বসেন নরেন্দ্র মোদি। এ সময় দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও প্রতিরক্ষা বিষয়ে কথা হয় তাদের। মোদির সঙ্গে বৈঠক শেষে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা খুব ভালো বন্ধু হয়ে উঠেছি। আমাদের দুই দেশ কখনো এতটা কাছাকাছি আসেনি। এটা আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি। আমরা অনেকগুলো বিষয়ে একসঙ্গে কাজ করব যার মধ্যে সেনাও আছে। আমরা আজ বাণিজ্য নিয়েও কথা বলব।’

সম্প্রতি ব্যবসায়িক শুল্ক নিয়ে দুই দেশের মধ্যে অসন্তোষের সৃষ্টি হয়েছে। সেদিক থেকে এই বৈঠকের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। ভারত ২৮টি মার্কিন পণ্যের উপরে শুল্ক আরোপ করেছে এমাসের শুরুতে। তার আগে আমেরিকা ১ জুন দীর্ঘদিনের বাণিজ্যিক অনুমোদন প্রত্যাহার করে নেয়। তারপরই এই সিদ্ধা‌ন্ত ভারতের।

তবে আজ দুই নেতা ভারতের রাশিয়ার সঙ্গে অস্ত্র চুক্তি নিয়ে কোনো কথা বলেননি বলে জানিয়েছেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বিজয় গোখলে। এর আগে আমেরিকা রাশিয়ার থেকে ভারতের ক্ষেপণাস্ত্র কেনার ব্যাপারে আপত্তি জা‌নিয়ে ওই চুক্তি বাতিল করতে বলে।

ট্রাম্প মোদিকে নির্বাচনে জয়ের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‘এটা দারুণ জয়। খুব বড় জয়, আপনার এটা প্রাপ্য… আপনি এবং আপনার দক্ষতার প্রতি দারুণ শ্রদ্ধা প্রদর্শন। সবাইকে একসঙ্গে করার ব্যাপারে আপনি দারুণ কাজ করেছেন। আমার মনে পড়ছে, প্রথম বার যখন আপনি ক্ষমতায় এলেন, তখন অনেক সংঘাত ছিল। অনেকেই পরস্পরের সঙ্গে লড়াই করছিল। কিন্তু এখন তারা সবাই একসঙ্গে হয়েছে।’

মোদি-ট্রাম্প দ্বিপাক্ষিক বৈঠক নিয়ে বলতে গিয়ে গোখলে বলেন, ‘ইরান বিষয়ে আমাদের প্রাথমিক ফোকাস ছিল সেখানে স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনার। বহু দিক থেকেই অস্থিরতা কাজ করছে ওখানে। কেবল শক্তি সম্পদের প্রয়োজনেই নয়, উপসাগরীয় অঞ্চলে বসবাসকারী ৮০ লাখ ভারতীয় বাস করছেন, তাদের জন্যও।’

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার মোদি ও জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের মধ্যে একটি দ্বিপাক্ষিক বৈঠক হয়। সেখানেও বিবিধ বিষয়ে আলোচনা হয়। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য বুলেট ট্রেন প্রকল্প ও পলাতক অর্থনৈতিক অপরাধী প্রসঙ্গ।