কাতারে প্রথমবারের মতো যুদ্ধবিমান মোতায়েন করেছে যুক্তরাষ্ট্র

নিউজ ডেস্ক :   উপসাগরীয় অঞ্চলে ইরানের সঙ্গে তীব্র উত্তেজনার মাঝে কাতারে প্রথমবারের মতো উন্নত প্রযুক্তির এফ-২২ স্টিলথ যুদ্ধবিমান মোতায়েন করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ওই অঞ্চলে মার্কিন সামরিক বাহিনী ও তাদের স্বার্থের সুরক্ষার জন্য এই যুদ্ধবিমান মোতায়েন করা হয়েছে বলে মার্কিন বিমানবাহিনীর সেন্ট্রাল কমান্ড।

এক বিবৃতিতে মার্কিন নৌবাহিনী বলছে, আমেরিকার সামরিক বাহিনী ও তার স্বার্থ সুরক্ষায় বিমান বাহিনী এফ-২২ স্টিলথ যুদ্ধবিমান মোতায়েন করা হয়েছে। উন্নত প্রযুক্তির কতটি এই যুদ্ধবিমান মোতায়েন করা হয়েছে সেব্যাপারে পরিষ্কার কোনো তথ্য দেয়া হয়নি।

তবে মার্কিন বাহিনীর প্রকাশিত একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে, কাতারের আল উদায়েদ বিমান ঘাঁটির আকাশে যুক্তরাষ্ট্রের পাঁচটি যুদ্ধবিমান উড়ছে।

২০১৫ সালে জুনে ছয় বিশ্বশক্তির সঙ্গে স্বাক্ষরিত ইরানের পারমাণবিক চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয়ার পর থেকে তেহরান-ওয়াশিংটন উত্তেজনা শুরু হয়। চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর ইরানের বিরুদ্ধে কয়েক দফা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ওয়াশিংটন।

তবে এই উত্তেজনায় পারদ জমে গত সপ্তাহে উপসাগরীয় অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের একটি মনুষ্যবিহীন ড্রোনে গুলি চালিয়ে তেহরান ভূপাতিত করার পর। ওমান ও আরব আমিরাতের জলসীমায় পাল্টাপাল্টি তেলবাহী ট্যাঙ্কারে হামলার পর ওই ড্রোন ভূপাতিতের ঘটনা ঘটে। ট্যাঙ্কারে হামলার জন্য সৌদি আরব এবং যুক্তরাষ্ট্র ইরানকে দায়ী করে; যদিও তেহরান এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

এর পর থেকে চিরবৈরী এ দুই দেশের মাঝে কথার লড়াই অব্যাহত রয়েছে। এতে নতুন মাত্রা যোগ হয় গত সপ্তাহে; যখন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাবেদ জারিফের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মার্কিন বাহিনীর ওপর ইরানের সম্ভাব্য হামলার আশঙ্কায় গত মে মাসে মধ্যপ্রাচ্যে বোমারু বিমান বি-৫২, যুদ্ধবিমানবাহী রণতরীসহ অতিরিক্ত সৈন্য মোতায়েন করে যুক্তরাষ্ট্র।

কাতারের আল উদায়েদ বিমান ঘাঁটিতে মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম সামরিক উপস্থিতি রয়েছে। কাতার থেকে পরিচালিত যুক্তরাষ্ট্রে এই ঘাঁটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ। এতে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের অন্তত ১১ হাজার সৈন্য এবং শতাধিক যুদ্ধবিমান রয়েছে।