ইতিহাসের ধারাবাহিকতা উপেক্ষা অশুভ ইঙ্গিত: সামাজিক আন্দোলনে

নিউজ ডেস্ক :   দশের লড়াই সংগ্রামের প্রকৃত ইতিহাস নতুন প্রজন্মকে দেশপ্রেমিক হিসেবে গড়ে উঠতে উজ্জিবিত করবে, ইতিহাসের ধারাবাহিকতা উপেক্ষা করার প্রতিযোগীতা সুদুর প্রসারী অশুভ ইঙ্গিত বলে প্রতীয়মান হচ্ছে”

সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের সভাপতি জিয়াউদ্দিন তারেক আলী ও সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ একযুক্ত বিবৃতিতে সম্প্রতি স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদ্বয়ের গৌরবময় সময়ের লড়াই সংগ্রামের ত্যাগ তিতিক্ষা, কৌশল, নেতৃত্ব ও অবদানকে নিয়ে ধারাবাহিক প্রকাশিত নিবন্ধে পাল্টাপাল্টি ও বিষোদগার স্বাধীনতার প্রকৃত ঘটনাকে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করা হচ্ছে কিনা তা সংশ্লিষ্ট মহলের সতর্কতার সাথে বিবেচনায় নেবার আহ্বান জানান।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৃঢ় নেতৃত্বে দীর্ঘ লড়াই সংগ্রাম ও সম্মিলিত জাতীয় ত্যাগ তিতিক্ষার বিনিময়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাঙ্গালীজাতি যে বিজয় অর্জন করে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করে তা বিশ্বমানচিত্রে আজও চির অম্নন হয়ে আছে। স্বাধীনতার ৫০ বছরের মূখোমূখি দাড়িয়ে সে সময়ের লড়াই সংগ্রামের নেতৃত্বদানকারী বীর সৈনিকেরা যারা এখনও বেঁচে আছেন তারা সকলেই ইতিহাসের কিংবদন্তি জাতির গর্বিত সন্তান। একথা অনস্বিকার্য যে, মহান মুক্তিযুদ্ধে সাড়ে ৭কোটি বাঙ্গালী সেদিন দলমত, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে মুক্তির সংগ্রামে ঝাপিয়ে পড়ে জীবনবাজি রেখে স্বৈরাচার আয়ুব-ইয়াহিয়া চক্রের হাত থেকে স্বাধীনতার বিজয় ছিনিয়ে এনেছেন।

সেদিন রাজনৈতিক দল হিসেবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পাশাপাশি ন্যাপ, কমিউনিষ্ট পার্টি, ছাত্র ইউনিয়নসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক, সাংস্কৃতিক পেশাজীবী সংগঠন সমুহে স্বাধীনতা যুদ্ধে সক্রিয় ভুমিকা রেখেছেন মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে এই ইতিহাস সকলের জানা। এই লড়াইয়ে সম্মুখে যুদ্ধে তৎকালীন ইপিআরসহ বিভিন্ন বাহিনীর এদেশীয় সদস্যগণ ছাড়াও দেশ বিদেশের বিভিন্ন ব্যাক্তি সংগঠন বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্রসমুহ আমাদের মুক্তি সংগ্রামে গৌরবময় অবদান রেখেছেন।

আমাদের প্রশ্ন স্বাধীনতার মাত্র সাড়ে ৩বছরের মাথায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রকারীদের হাতে নির্মম ভাবে নিহত হবার ঘটনার চড়ামুল্য এখনও জাতিকে দিতে হচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসকে নিয়ে যে পাল্টাপাল্টি চলছে বিভিন্নজন বিভিন্ন ঘটনার অবতারনা করছেন তা কতটা গ্রহণযোগ্য ও শোভনীয় তা বিবেচনায় নেবার জন্য আমরা সংশ্লিষ্ট মহলের দৃষ্টি আকর্ষন করছি। মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক চেতনার পক্ষের শক্তির কোনপ্রকার ত্রæটি-বিচ্যুতি, দুর্বলতার সুযোগে স্বার্থান্বেশী মহল সর্বদা নিজেদের হীনস্বার্থ চরিত্বার্থ করার অপচেষ্টায় লিপ্ত থাকে, এই বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে আমরা সংশ্লিষ্ট মহলের শুভবুদ্ধির পরিচয় আশা করবো।

একইসাথে দেশে সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ, মাফিয়া চক্রান্ত ও গণতান্ত্রিক স্থিতিশীলতার বিবেচনায় এ ধরণের পাল্টাপাল্টিতে সুবিধাবাদী মহলকে সূযোগ করে দেবে কিনা তা ভেবে দেখতে হবে। অন্যদিকে দেশে নানা ধরনের অনিয়ম, নারী-শিশু নির্যাতন, সংখ্যালঘু আদিবাসীদের উপর হুমকী, রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানের অনিশ্চয়তার মাঝে আমাদের দায়িত্বশীল নেতৃবৃন্দের তড়িৎ করনীয় গুলো সামনে আনলে জাতি উপকৃত হবে বলে আমরা মনে করি। তবেই স্বাধীনতার প্রকৃত ত্যাগ ও ইতিহাসের মূল্যায়ন হবে।