দেশের বিভিন্ন স্থানে ঈদ হচ্ছে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে

নিউজ ডেস্ক : আজ মঙ্গলবার দেশের বিভিন্ন স্থানে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে। সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দেশের বিভিন্ন স্থানে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে। সকালে ঈদগাহে নামাজ শেষে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা একে অপরের সঙ্গে কোলাকুলি করে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন।

নারায়ণগঞ্জ : সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার লামাপাড়া এলাকায় আজ ঈদুল ফিতরের নামাজের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ১০টায় হযরত শাহ সুফি মমতাজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা হেফজখানায় ঈদের এই জামাতে ইমামতি করেন মুফতি মাওলানা আনোয়ার হোসেন শুভ। ঈদ উৎসব পালনকারীরা ঢাকা, সাভার, গাজীপুর, নরসিংদী, মুন্সীগঞ্জ ও নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ, বন্দর থেকে এই মাদ্রাসায় এসে জমায়েত হয়ে ঈদের জামাতে অংশ নেন।

শরীয়তপুর : সুরেশ্বর পীরের অনুসারীরা শরীয়তপুর জেলার চার উপজেলার ২০টি গ্রামে আজ মঙ্গলবার ঈদুল ফিতরের উৎসব করছেন। অন্তত ১০ হাজার ধর্মপ্রাণ মুসল্লি এ ঈদ-জামাতে অংশগ্রহণ করেন বলে জানা গেছে।

সুরেশ্বর পীরের দরবার সূত্র জানায়, সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে প্রায় ১০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে সুরেশ্বর পীরের সব ভক্ত ও তাঁদের মুরিদানেরা একই নিয়মে ঈদ উৎসব উদযাপন করে আসছেন।

সূত্র জানায়, নড়িয়া উপজেলার সুরেশ্বর, চণ্ডিপুর, ইছাপাশা, থিরাপাড়া, ঘড়িষার, কদমতলী, নিথীরা, মানাখানা, নশাসন, ভুমখারা, ভোজেশ্বর, জাজিরা উপজেলার কালাইখার কান্দি, মাদবর কান্দি, সদর উপজেলার বাঘিয়া, কোটাপাড়া, বালাখানা, প্রেমতলা, ডোমসার, শৌলপাড়া, ভেদরগঞ্জ উপজেলার লাকার্তা, পাপরাইল ও চরাঞ্চলের ১০টি গ্রামসহ প্রায় ২০টি গ্রামের অন্তত এক হাজার পরিবারে ১০ হাজারের ও বেশি নারী-পুরুষ মঙ্গলবার সকাল ৯টায় সুরেশ্বর দরবার শরিফে ঈদের জামাত শেষে সেমাই-পোলাও খেয়ে ঈদুল ফিতরের উৎসব করেন।

সুরেশ্বর পীরের বর্তমান গদিনশীন মুত্তাওয়ালি সৈয়দ কামাল নুরী বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে আমরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে নামাজ শেষে ঈদ উৎসব উদযাপন করে আসছি। এর ধারাবাহিকতায় শরীয়তপুর জেলার অন্তত ১০ হাজার মুরিদ আমাদের সঙ্গে আজ ঈদ করবে এবং ঈদের নামাজ আদায় করবেন।’

চাঁদপুর : চাঁদপুর জেলার চারটি উপজেলার ৫০টি গ্রামের প্রায় লক্ষাধিক ধর্মপ্রাণ মুসলমান প্রতি বছরের মতো এবারও সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে আজ মঙ্গলবার ঈদুল ফিতর উদযাপন করছেন।

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার সাদ্রা দরবার শরিফের পীর ডা. ইসহাকের ভক্ত অনুসারীরা প্রায় ১০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখেই আগাম রোজা ও ঈদ পালন করে আসছেন। সাদ্রা হামিদিয়া ফাজিল মাদ্রাসা মাঠে সকাল সাড়ে ৯টায় ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

দক্ষিণ চট্টগ্রাম : সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে আজ মঙ্গলবার দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৬০টি গ্রামে ঈদুল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে।

প্রতি বছরের মতো এবারও পটিয়ার মোহাম্মদ নগর, এলাহবাদ, চন্দনাইশ উপজেলার কাঞ্চন নগর জাহাগিরিয়া মমতাজিয়া দরবার ও সাতকানিয়ার মির্জা খীল দরবারের অনুসারীরা ঈদের নামাজ আদায় ও উৎসব পালন করছেন।

সকাল ৯টায় জাহাগিরিয়া মমতাজিয়া দবরারের মাঠ প্রাঙ্গণে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইমামতি করেন দরবার শরিফের সাজ্জাদানশীন হযরত মাওলানা শাহ সুফি সৈয়দ মোহাম্মদ আলী। ঈদের নামাজ শেষে অনুষ্ঠিত বিশেষ মোনাজাতে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করেন তিনি।

এ ছাড়া উপজেলার এলাহাবাদ, বরকল, বরমা শেভন্দী, হাশিমপুর দোহাজারী, সাতবাড়িয়া, জোয়ারা এলাকায় তরিকতের অনুসারীরা ঈদের নামাজ আদায় করেছেন।