রাজাকার হান্নানসহ ৮ জনের যুদ্ধাপরাধে বিচার শুরু

নিউজ ডেস্ক:  একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় ময়মনসিংহের (ত্রিশাল) সাবেক এমপি জাতীয় পার্টির নেতা রাজাকার এম এ হান্নানসহ আটজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। একইসঙ্গে প্রসিকিউশন পক্ষের সূচনা বক্তব্য ও সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য আগামী ১৪ জুলাই দিন ধার্য করা করা হয়েছে। বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল সোমবার এ আদেশ দেন। এর মধ্যে দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হলো এ মামলার বিচার।

এম এ হান্নানসহ (৮০) এ মামলার ছয় আসামি গ্রেফতার হয়ে কারাগারে আছেন। অন্যরা হলেন- ডা. রফিক সাজ্জাদ (৬২), ডা. খন্দকার গোলাম সাব্বির আহমদ (৬৪), মিজানুর রহমান মিন্টু (৬৩) ও হরমুজ আলী (৭৩)। সর্বশেষ ২০১৭ সালর ২৮ মার্চ আবদুস সাত্তার (৬৪) আত্মসমর্পণ করেন। পলাতক দুই আসামি হলেন- ফখরুজ্জামান (৬১) ও খন্দকার গোলাম রব্বানী (৬৩)।

আদালতে প্রসিকিউশন পক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ শিমন। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী মিজানুল ইসলাম, আবদুস সোবহান তরফদার।

আদেশের পর প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ শিমন বলেন, এই মামলার ছয় আসামি কারাগারে আছেন। বাকি দুইজন পলাতক। আটজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের আদেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। আগামী ১৪ জুলাই প্রসিকিউশন পক্ষের সুচনা বক্তব্যে ও সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেছেন আদালত।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, আসামিদের বিরুদ্ধে একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, আটক, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, অপহরণ ও লাশ গুমের ছয় ধরনের অভিযোগ আনা হয়। ২০১৬ সালের ১১ ডিসেম্বর এ মামলায় অভিযোগ আমলে নেয় ট্রাইব্যুনাল। একই বছরের ৩১ অক্টোবর তাদের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করেন প্রসিকিউশন।

ত্রিশালের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমানের স্ত্রী রহিমা খাতুন ২০১৫ সালের ১৯ মে আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় এম এ হান্নান ছাড়াও জামায়াত নেতা ফখরুজ্জামান ও গোলাম রব্বানীকে আসামি করা হয়। পরে তদন্তে আরও পাঁচজনের সম্পৃক্ততা পাওয়ায় এ মামলার আসামি হয়েছেন মোট আটজন।