ভারতের নির্বাচনকে উদাহরণ হিসেবে কেন বলেন না?

সুমন দত্ত: দেশের বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে কত বার ভারতের উদাহরণ দেন। ভারতে হয়ে যাওয়া নির্বাচনের উদাহরণ কেন টানতে চান না? কত সুন্দর ভাবে সেখানকার নির্বাচন কমিশন ৭ ধাপে নির্বাচন শেষ করে তার তিন দিন পর ফলাফল ঘোষণা করল। কেউ এই ফলাফল নিয়ে সন্দেহ পোষণ করল না। নরেন্দ্র মোদি বিশাল জনমত নিয়ে সরকার গড়তে যাচ্ছে। এমন একটি নির্বাচন কেন এদেশের সরকার করতে পারে না। কেন তারা ভারতের মত একটি নির্বাচন কমিশন তৈরি করতে পারেন না। শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির জ্যৈষ্ঠ সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন শাসক আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩৮তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী নাগরিক দল।

খন্দকার মোশাররফ হেসেন বলেন, ভারতে নির্বাচনের শিক্ষা আমাদের নেওয়া উচিত। দেশটির জনগণ তাদের নেতা নির্বাচিত করতে পেরেছে। এজন্য তিনি ভারতের নির্বাচনে বিজয়ী বিজেপি নেতা নরেন্দ্র মোদিকে অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, রাহুল গান্ধি নিজ কেন্দ্র আমেথি থেকে স্মৃতি ইরানির কাছের হেরে যান। তারপরও তিনি স্মৃতি ইরানিকে বলেন আপনি আমার এলাকার লোকজনের সমস্যাগুলো দেখবেন। শুধু সেখানেই থেমে থাকেনি রাহুল গান্ধি। নির্বাচনের রেজাল্ট ঘোষণার কিছুক্ষণ পরই ১০ মিনিটের একটি প্রেসকনফারন্সে ডেকে তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে অভিনন্দন জানান। এমন সুন্দর গণতান্ত্রিক কালচার কেন উদাহরণ হিসেবে আমাদের দেশের শাসকরা বলতে চান না। কতকিছুর উদাহরণ টানতে গিয়ে তো তারা ভারতের কথা বলেন। আজ ভারতে এত সুন্দর একটা নির্বাচন হলো আওয়ামী লীগ চুপ। তারা ২৯ ডিসেম্বর ভোট ডাকাতি করে নির্বাচিত হয়েছে। দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থা ভেঙ্গে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। তাই তারা আজ এ বিষয়ে নীরব।

তিনি খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে বলেন, লন্ডনে শেখ হাসিনা নিজেই হুমকি দিয়ে বলেছেন বেশি বাড়াবাড়ি করলে খালেদা জিয়াকে আজীবন জেলে থাকতে হবে। তাই আন্দোলন ছাড়া খালেদা জিয়ার মুক্তি সম্ভব নয়। এটা এখন সবাই জেনে গেছে। আদালতের কথা বলে দেশনেত্রী গণতন্ত্রের মা খালেদা জিয়াকে আটকে রাখা সরকারের অজুহাত মাত্র।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম