ঋণখেলাপীদের ব্যাপারে সংসদে আলোচনা করুন: মেনন

নিউজ ডেস্ক :    বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সংসদ সদস্য রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ঋণখেলাপীদের ব্যাপারে কিছু করার আগে জাতীয় সংসদে উন্মুক্ত আলোচনা করতে হবে। এর সঙ্গে দেশের আর্থিকখাত, ব্যাংকিং ব্যবস্থা ও আমানতকারীদের স্বার্থ জড়িত। ঋণখেলাপ হলো বড় দুর্নীতি। এই দুর্নীতি বন্ধ করতে না পারলে কেবল আর্থিকখাতে নয়, শাসন ব্যবস্থায় শৃঙ্খলা ফিরে আসবে না।

সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘দুর্নীতি, ঋণখেলাপী ও ব্যাংকিং খাতে নৈরাজ্য বন্ধে বাজেটে সুস্পষ্ট অঙ্গীকার চাই’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাশেদ খান মেনন এসব কথা বলেন।

আলোচনা সভার আয়োজন করে ওয়ার্কার্স পার্টির ঢাকা মহানগর কমিটি। এতে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা মহানগর কমিটির সভাপতি আবুল হোসাইন। আলোচনা করেন সাংবাদিক স্বদেশ রায়, ঢাকা মহানগর নেতা বেনজীর আহমেদ প্রমুখ। সভা সঞ্চালনা করেন ঢাকা মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক কিশোর রায়।

মেনন বলেন, খেলাপী সংস্কৃতি সমাজের অগ্রগতিকে বাধাগ্রস্ত করছে। ঋণখেলাপী ও দুর্নীতিবাজরা সমাজকে জিম্মি করে ফেলেছে। তাদের বিরুদ্ধে কেবল আইনি ব্যবস্থাই নয়, সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এই আন্দোলনে বাম প্রগতিশীল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তীকালে সামরিক শাসকরা দুর্নীতির চাষাবাদ শুরু করে। জেনারেল জিয়াউর রহমান দুর্নীতির ভিত্তি স্থাপন করেন। আর জেনারেল এরশাদ দুর্নীতিকে শিল্পে পরিণত করেন। বর্তমান উদারবাদী অর্থনীতি দুর্নীতির সেই শিল্প এখন মেগা শিল্পে রূপ নিয়েছে।

সম্প্রতি রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের যে দুর্নীতি চিত্র প্রকাশিত হয়েছে, তাতে বোঝা যায় সমাজে দুর্নীতি কি ভয়াবহ রূপলাভ করেছে। প্রশাসনের রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্নীতি আজ বাসা বেঁধেছে। তিনি বলেন, এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে যদি এখনই ব্যবস্থা নেওয়া না যায়, তাহলে গোটা সমাজ দুর্নীতিগ্রস্ত হয়ে পড়বে। এ ব্যপারে রাজনৈতিক সদিচ্ছার কোনো বিকল্প নেই।