ঈদের পর নতুন এমপিওর প্রজ্ঞাপন

নিউজ ডেস্ক:   টানা আট বছরের অপেক্ষার প্রহর শেষ হচ্ছে বেসরকারি নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীদের। এমপিওভুক্তির জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বাছাই শেষ করে রেখেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। অর্থ বরাদ্দের ওপর মোট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা চূড়ান্ত করা হবে। ঈদুল ফিতরের পর চূড়ান্ত তালিকা যে কোনো দিন প্রকাশ করা হতে পারে।

সূত্র জানায়, ঈদের আগে নতুন এমপিওভুক্ত দেওয়ার ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ে তোড়জোড় থাকলেও নানা বাস্তবতায় তা দেওয়া সম্ভব নাও হতে পারে। মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে, বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নতুন এমপিওভুক্তির ঘোষণা ঈদুল ফিতরের আগে বা পরে যখনই হোক না কেন, শিক্ষকরা আগামী জুলাই মাস থেকে সুবিধা পাবেন তার।

২০১০ সালে সর্বশেষ এক হাজার ৬২৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করেছিল সরকার। এর পর থেকে সেই প্রক্রিয়া বন্ধ। গত জাতীয় নির্বাচনের আগে তড়িঘড়ি করে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির কার্যক্রম শুরু করা হয়। তবে নতুন সরকার গঠনের পর পাঁচ মাস অতিবাহিত হলেও এখনও চূড়ান্ত ঘোষণা আসেনি সরকারের পক্ষ থেকে। ফলে সারাদেশের প্রায় ছয় হাজার নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় ৮৫ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী এ মুহূর্তে প্রহর গুনছেন প্রতীক্ষার।

নন-এমপিও শিক্ষকরা জানিয়েছেন, দফায় দফায় আন্দোলনের পর তাদের দাবির মুখে গত আগস্ট মাসে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এমপিওভুক্তির ঘোষণা দিয়ে প্রক্রিয়া শুরু করে। এমপিওভুক্তির জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে আবেদন নেয়। তখন প্রায় সাড়ে ৯ হাজার স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা আবেদন করে। এরপর প্রাথমিক যাচাইয়ে ওইসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে প্রায় দুই হাজারের বেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যোগ্য (ফিটলিস্ট) ভুক্ত হয়। এক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের বয়স, শিক্ষার্থী সংক্রান্ত তথ্য, পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীর সংখ্যা ও পাসের হার, অবকাঠামো ইত্যাদি বিবেচনায় নম্বর পায় প্রতিষ্ঠানগুলো। সব মিলিয়ে ১০০ নম্বরের মধ্যে গ্রেডিং করা হয়। 

আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগেই বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা আসছে কি-না? জানতে চাইলে গতকাল রোববার বিকেলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসাইন বলেন, ‘এমপিওভুক্তির ঘোষণা ঈদের আগে বা পরে যখনই হোক, জুলাই মাসে কার্যকর হবে এটা।’

বর্তমানে সারাদেশে এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৭ হাজার ৮১০টি। এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারীর সংখ্যা চার লাখ ৯৬ হাজার ৩৬২ জন। এ খাতে মাসে সরকারের ব্যয় হয় ৯৪২ কোটি টাকা। অন্যদিকে দেশে একাডেমিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে পাঁচ হাজার ২৪২টি। এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারীর সংখ্যা ৮০ হাজার। একাডেমিক স্বীকৃতির বাইরেও আরও দুই হাজার নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে।