মেহেরপুরে ধর্ষণ ও এসিড নিক্ষেপের আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

নিউজ ডেস্ক:মেহেরপুরের গাংনী উপজেলায় এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে করা মামলার আসামি ইয়াকুব আলী ওরফে কাজল (২৭) পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে।

শুক্রবার রাত ২টার দিকে উপজেলার গাড়াডোব গ্রামে এ ‘বন্দুকযুদ্ধে’র ঘটনা ঘটে জানিয়ে পুলিশ বলছে, এ ঘটনায় পুলিশের এক এসআইসহ ৪ সদস্য আহত হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশীয় ওয়ান শুটারগান, ২ রাউন্ড গুলি ও একটি রামদা উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহত ইয়াকুব আলী উপজেলার গাড়াডোব গাছলা পাড়ার জালাল উদ্দীনের ছেলে।

গাংনী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সাজেদুল ইসলাম জানান, এক গৃহবধূর ওপর অ্যাসিড নিক্ষেপের অভিযোগে ইয়াকুব আলী ওরফে কাজলকে শুক্রবার রাতে গ্রেফতার করা হয়। রাতে তাকে সঙ্গে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারে গেলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তার সহযোগীরা গুলি ছোড়ে। জবাবে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। দুইপক্ষের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের একপর্যায়ে কাজল গুলিবিদ্ধ হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে গাংনী হাসপাতালে নেয়া হলে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি জানান, কাজলের বিরুদ্ধে গাংনী থানায় এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে আগে থেকেই মামলা ছিল।

পুলিশ জানায়, গত বছরের ২০ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় গাড়াডোব গ্রামের এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর গণধর্ষণের অভিযোগে ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে কাজলসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। ঘটনার পর থেকে আত্মগোপন করে ধলা গ্রামের দুঃসম্পর্কের ভগ্নিপতি সেলিম হোসেনের বাড়িতে থাকতেন কাজল। এরই মধ্যে ওই এলাকায় এক গৃহবধূ তার প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যখ্যান করায় গত বৃহস্পতিবার তার শরীরে এসিড নিক্ষেপ করে কাজল। এই ঘটনায় শুক্রবার রাতে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করলে ধর্ষণ মামলার আসামি হিসেবে তার পরিচয় নিশ্চিত হয়। অ্যাসিডে আক্রান্ত গৃহবধূ গাংনী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম/জাহিদ।