মসিক নির্বাচনে ৩৩ ওয়ার্ডে বেসরকারিভাবে যারা কাউন্সিলর নির্বাচিত হলেন

মোঃ নজরুল ইসলাম এবং জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, ময়মনসিংহ:

বাংলাদেশে এই প্রথম ৫ মে (রবিবার) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১২৭টি কেন্দ্রেই ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) পদ্ধতিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো। 

ইতোমধ্যেই মেয়র পদে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় আওয়ামীলীগ মনোনীত ইকরামুল হক টিটুকে নির্বাচিত ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন। তাই এখন শুধু কাউন্সির পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো। সিটির ৩৩টি সাধারণ ওয়ার্ডে, ২৪২ জন এবং ১১টি সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ৭০ প্রার্থীসহ মোট মোট ৩১২জন প্রার্থী নির্বাচনে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছিলেন।

জুডিশিয়াল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ, আনসার ব্যাটালিয়ন, আনসার ও গ্রাম পুলিশসহ পর্যাপ্ত আইন প্রয়োগকারী সদস্য নিয়োজিত করা হয়েছে। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণের জন্য নির্বাচন কমিশন সকল প্রকার প্রস্তুতি গ্রহণ করে ছিলেন। ইভিএম দেখভালের জন্য প্রতিটি কেন্দ্রে ২ জন সেনা সদস্য ও একজন এক্সপার্টসহ মোট ৩জন এক্সপার্ট নিয়োজিত করা হয়েছিল। ইভিএম এ কোনো রকম সমস্যা দেখা দিলে তাৎক্ষনিক সামাধান দেয়ার ব্যবস্থা রয়েছে বলে জানান সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের রির্টানিং কর্মকর্তা ও আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার মোঃ আলীমুজ্জামান। তিনি বলেন ইভিএম এমন একটি পদ্ধতি, একজনের ভোট আরেকজন দিতে পারবে না, যার মাধ্যমে জাল ভোট দেয়ারও কোন সুযোগ নেই।ইভিএম কার্যকারী করতে ইতেমধ্যেই কেন্দ্রে কেন্দ্রে (অনুশীলন) ভোটিং করা হয়েছে।

রির্টানিং কর্মকর্তা ও আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার মোঃ আলীমুজ্জামান শুক্রবার সন্ধ্যায় তার সম্মেলন কক্ষে এক প্রেস ব্রিফিং এ জানান, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের ৩৩টি ওয়ার্ডে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং ৩জন মোবাইল ম্যাজিস্ট্রেট, ১৬জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, ২২ প্ল্যাটুন বর্ডার গার্ড (বিজিবি) স্টাইকিং, আনসার ব্যাটলিয়ন টীম ৩টি, ৩৩টি ওয়ার্ডে ৩৩টি পুলিশের মোবাইল টীম এবং আরো ১১টি স্টাইকিং ফোর্স মোতায়েন করা হবে। ৫৫টি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে পুলিশসহ ৫জন অস্ত্রধারী মোতায়েন থাকবে।ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মোট কেন্দ্র ১২৭টি, মোট ভোট কক্ষ-৮৩০টি, মোট ভোটার ২ লাখ ৯৬ হাজার ৯৩৮জন। তন্মধ্যে পুরুষ ১লাখ ৪৬ হাজার ৪৫৮জন এবং নারী ভোটার ১ লাখ ৫০ হাজার ৪৮০জন।

দেশের ১২তম সিটি কর্পোরেশনের ফলাফল ঘোষণা করে রির্টানিং কর্মকর্তা ও আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার মোঃ আলীমুজ্জামান জানান,সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে নির্বাচিত হলেন যারা-

১.নং ওয়ার্ডে, সেলিনা আক্তার,
২.নং ওয়ার্ডে, শাম্মী আক্তার,
৩.নং ওয়ার্ডে, হামিদা পারভীন,
৪.নং ওয়ার্ডে, রুখসানা শিরিন,
৫.নং ওয়ার্ডে, রোকেয়া হোসেন,
৬.নং ওয়ার্ডে, রোখসানা পারভীন কাজল,
৭.নং ওয়ার্ডে, শামীমা আক্তার,
৮.নং ওয়ার্ডে, শাহনাজ বেগম,
৯.নং ওয়ার্ডে, আইরিন আক্তার,
১০.নং ওয়ার্ডে, কাউসার ই জান্নাত,
১১.নং ওয়ার্ডে, ফারজানা ববি কাকলী।

সিটি কর্পোরেশনের ৩৩টি সাধারণ ওয়ার্ডে, নবনির্বাচিত কাউন্সিলর হিসাবে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হলেন যারা-

১. নং ওয়ার্ডে, মোঃ আসাদুজ্জামান বাবু,
২.নং ওয়ার্ডে, মোঃ গোলাম রফিক দুদু,
৩.নং ওয়ার্ডে, মোঃ শরীফুল ইসলাম,
৪.নং ওয়ার্ডে, মোঃ মাহবুবুর রহমান দুলাল ,
৫.নং ওয়ার্ডে, মোঃ নিয়াজ মোর্শেদ,
৬.নং ওয়ার্ড, সৈয়দ শফিকুল ইসলাম মিন্টু,
৭.নং ওয়ার্ডে, মোঃ আসিফ হোসেন ডন,
৮.নং ওয়ার্ডে, মোঃ ফারুক হাসান,
৯.নং ওয়ার্ডে, শীতল সরকার,
১০.নং ওয়ার্ডে, মোঃ তাজুল আলম,
১১.নং ওয়ার্ডে, মোঃ ফরহাদ আলম,
১২.নং ওয়ার্ডে, মোঃ আনিসুর রহমান,
১৩.নং ওয়ার্ডে, মোঃ দেলোয়ার হোসেন,
১৪.নং ওয়ার্ডে, মোঃ ফজলুল হক উজ্জল,
১৫.নং ওয়ার্ডে, মোঃ মাহবুব আলম হেলাল,
১৬.নং ওয়ার্ডে, মোঃ আব্দুল মান্নান,
১৭.নং ওয়ার্ডে, মোঃ কামাল খান,
১৮.নং ওয়ার্ডে, হাবিবুর রহমান হবি,
১৯.নং ওয়ার্ডে, মোঃ আব্বাস আলী মন্ডল,
২০.নং ওয়ার্ডে, মোঃ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ,
২১.নং ওয়ার্ডে, মোঃ মোস্তফা ফারুক,
২২.নং ওয়ার্ডে, মোঃ মোস্তফা কামাল,
২৩.নং ওয়ার্ডে, মোঃ সাব্বির ইউনুস বাবু,
২৪.নং ওয়ার্ডে, মোঃ আমিনুল ইসলাম সোহেল,
২৫.নং ওয়ার্ডে, মোঃ মনোয়ার হোসেন বিপ্লব,
২৬.নং ওয়ার্ডে, মোঃ শফিকুল ইসলাম শফিক,
২৭.নং ওয়ার্ডে, মোঃ লিটন,
২৮.নং ওয়ার্ডে, মোঃ কায়সার জাহাঙ্গীর আকন্দ,
২৯.নং ওয়ার্ডে, মোঃ রফিকুল ইসলাম,
৩০.নং ওয়ার্ডে, মোঃ আবুল বাশার,
৩১.নং ওয়ার্ডে, মোঃ আসাদুজ্জামান,
৩২.নং ওয়ার্ডে, মোঃএমদাদুল হক মন্ডল ও
৩৩.নং ওয়ার্ডে, মোঃ শাহজাহান মনি।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম/জাহিদ।