ত্রাণ নিয়ে দুর্গত এলাকায় যাওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

নিউজ ডেস্ক:  ঘূর্ণিঝড় ফণীতে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় ত্রাণ নিয়ে যেতে দলের নেতাদের নির্দেশ দিয়েছেন লন্ডনে অবস্থানরত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে আওয়ামী লীগের ধানমন্ডি কার্যালয়ে ফোন করে এ নির্দেশ দেন তিনি। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক ও সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিমসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। শুরুতে প্রধানমন্ত্রী ফণীর আঘাতে উপকূলীয় এলাকার ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে খোঁজখবর নেন। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কম হওয়ায় আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, দুর্গত এলাকায় কেউ যেন অনাহারে না থাকে।

যেসব এলাকায় ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে প্রয়োজনে সেনাবাহিনী, বিমানবাহিনীসহ সরকারি বিভিন্ন সংস্থাকে কাজে লাগিয়ে উদ্ধার তৎপরতা চালাতে হবে। এ সময় তিনি সরকারের পাশাপাশি দলীয়ভাবে নেতাকর্মীদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে ত্রাণ নিয়ে দুর্গত এলাকায় যাওয়ার নির্দেশনা দেন। তিনি বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে হবে। যার যার অবস্থান থেকে এগিয়ে আসতে হবে। এ সময় কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, ত্রাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, তথ্য সম্পাদক আফজাল হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বড় ক্ষয়ক্ষতি না হওয়ায় শুকরিয়া আদায় ঘূর্ণিঝড় ফণীর আঘাতে বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি না হওয়ায় আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ফণী দুর্বল হয়ে গতকাল সকালে বাংলাদেশ সীমানায় প্রবেশ করে। তবে দুর্বল হয়ে পড়ায় এতে এখন পর্যন্ত বড় ধরনের কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। এ জন্য লন্ডন সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুকরিয়া আদায় করেছেন বলে তার কার্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। 

সভায় মুখ্য সচিব প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট সবাইকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং ভবিষ্যতে জাতির যে কোনো দুর্যোগ মোকাবিলায় সমন্বিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তার কার্যালয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল করে সার্বক্ষণিকভাবে দুর্যোগ মোকাবিলা প্রস্তুতি কার্যক্রম সমন্বয়ের দায়িত্ব পালন করে।