জৈন্তাপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় ২জন নিহত, সড়ক অবরোধ

নিউজ ডেস্ক:  সিলেট তামাবিল মহাসড়কের জৈন্তাপুর বৈঠাখাল এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত এবং ১০ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় স্থানীয় জনতা সড়ক অবরোধ করে রাখে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বুধবার দুপুর ১২ টায় জৈন্তাপুর বৈঠাখাল নামক স্থানে জাফলং থেকে ছেড়ে আসা সিলেটগামী দুটি মাইক্রোবাস প্রতিযোগিতা মাধ্যমে একে অপরকে অতিক্রম করতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি মাইক্রোবাস দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলে দুই শিশু নিহত হয়, আহত হয় আরও ১০ জন। নিহতরা হলো, জৈন্তাপুর উপজেলার ফুলবাড়ী গ্রামের শওকত আলীর মেয়ে লুবনা বেগম (১২) ও ছোট বোন অহনা বেগম (৭)।

স্থানীয় জনতা আহতদের উদ্ধার করে জৈন্তাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠান। আহতদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সেলিনা, জাহিদ ও সাইফুলকে সিলেট এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

সড়ক অবরোধের খবর পেয়ে জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল আহমদ ও জৈন্তাপুর মডেল থানার পুলিশ ও এলাকাবাসীর সহায়তায় রাস্তার অবরোধ তুলে নেওয়া হয়। পরে নিহতদের লাশ উদ্ধার করে জৈন্তাপুর মডেল থানায় নিয়ে আসা হয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহতের লাশ জৈন্তাপুর মডেল থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।

এ বিষয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ খাঁন মো. মাঈনুল জাকির বলেন, ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের লোকজন ও পুলিশ সদস্যরা গিয়ে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় উত্তেজিত জনতাকে শান্ত করেন এবং সিলেট তামাবিল মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক করেন।

অপরদিকে, জৈন্তাপুরের লালাখালের সারী নদীতে পাহাড়ি ঢলে পিতা-পুত্রের নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এলাকাবাসীরা জানায়, বুধবার ভোর ৪টায় সারী নদীতে কাঠ সংগ্রহ করতে গেলে আকস্মিক পাহাড়ি ঢলে নিখোঁজ হন পিতা আলা উদ্দিন (৩৫) এবং পুত্র সাকিল আহমেদ (১২)। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তাদের কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।

জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিষার ইনচার্জ খাঁন মো. মাঈনুল জাকির জানান, তাদের সন্ধান করতে লোক নিয়োজিত করা হয়েছে।