‘জঙ্গি আস্তানায়’ বিস্ফোরণে দু’জন নিহত হয়েছেন বলে ধারণা: বেনজীর

নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বছিলায় ‘জঙ্গি আস্তানায়’ বিস্ফোরণে দুজন নিহত হয়ে থাকতে পারেন বলে মন্তব্য করেছেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ। তবে ফরেনসিক পরীক্ষার পর মৃত ব্যক্তির সংখ্যার ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যাবে বলে জানান। নিহত ব্যক্তিদের ‘জঙ্গি’ বলে নিশ্চিত করেছেন তিনি।

গতকাল রোববার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটা থেকে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে বাড়িটি ঘিরে রাখা হয়। বাড়িটির ভেতর থেকে গুলি ও দুটি বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া গেছে বলে দাবি করে র‍্যাব। বাড়িটির আশপাশের লোকজনকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। বছিলার মেট্রো হাউজিং এলাকায় বাড়িটি অবস্থিত। মেট্রো হাউজিংয়ের দক্ষিণ-পূর্ব কোনার শেষ প্রান্তে একতলা টিনশেড ভবনটির অবস্থান। জঙ্গি অবস্থানের তথ্য জানার পরিপ্রেক্ষিতেই বাড়িটি ঘিরে অভিযান শুরু করে র‍্যাব-২।

রায়েরবাজার বধ্যভূমির ঠিক পেছনে র‍্যাব-২-এর নতুন সদর দপ্তর থেকে মাত্র আধা কিলোমিটার দূরে বাড়িটি অবস্থিত। বাড়িটির ঠিক পাশে একটি দোতলা ভবন রয়েছে। বেশির ভাগ প্লট ফাঁকা। কিছু বাড়ি নির্মাণাধীন।

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে র‌্যাবের ডিজি বেনজীর আহমেদ ‘জঙ্গি আস্তানা’ পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে বেলা ১১টার দিকে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, তিনটি পায়ের নমুনা পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, দুজন নিহত হয়েছেন। ফরেনসিক পরীক্ষায় বোঝা যাবে কয়জন মারা গেছেন।

এর আগে আজ সকালে র‍্যাবের পরিচালক (গণমাধ্যম) মুফতি মাহমুদ খান সাংবাদিকদের বলেন, বাড়িটির ভেতর দু-তিনজন ‘জঙ্গি’ মারা গেছেন বলে ধারণা করা যাচ্ছে।

তবে র‍্যাব-২-এর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, বাড়ির ভেতর দুজন ‘জঙ্গির’ ছিন্নভিন্ন মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

বেনজীর আহমেদ বলেন, এ ঘটনায় বাড়ির মালিক ও তত্ত্বাবধানকারীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। বাড়ির মালিক জানিয়েছেন, বাসাটি চলতি মাসের ১ তারিখে ভাড়া নেন নিহত ব্যক্তিরা। তবে ভাড়া দেওয়ার সময় তাঁদের কাছ থেকে জাতীয় পরিচয়পত্রের কোনো কপি নেওয়া হয়নি। গতকাল রাতে বাড়ির তত্ত্বাবধানকারীকে র‌্যাব বাড়িটি থেকে বের করার সময় র‌্যাবকে লক্ষ্য করে বাড়ির ভেতর থেকে গুলি ছোড়া হয়। তিনি বলেন, নিহত ব্যক্তিরা জঙ্গি। তবে ‘জঙ্গিরা’ কোন সংগঠনের, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।হাম্মদপুরের বছিলায় ‘জঙ্গি আস্তানায়’ বিস্ফোরণে দুজন নিহত হয়ে থাকতে পারেন বলে মন্তব্য করেছেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ। তবে ফরেনসিক পরীক্ষার পর মৃত ব্যক্তির সংখ্যার ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যাবে বলে জানান। নিহত ব্যক্তিদের ‘জঙ্গি’ বলে নিশ্চিত করেছেন তিনি।

গতকাল রোববার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটা থেকে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে বাড়িটি ঘিরে রাখা হয়। বাড়িটির ভেতর থেকে গুলি ও দুটি বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া গেছে বলে দাবি করে র‍্যাব। বাড়িটির আশপাশের লোকজনকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। বছিলার মেট্রো হাউজিং এলাকায় বাড়িটি অবস্থিত। মেট্রো হাউজিংয়ের দক্ষিণ-পূর্ব কোনার শেষ প্রান্তে একতলা টিনশেড ভবনটির অবস্থান। জঙ্গি অবস্থানের তথ্য জানার পরিপ্রেক্ষিতেই বাড়িটি ঘিরে অভিযান শুরু করে র‍্যাব-২।

রায়েরবাজার বধ্যভূমির ঠিক পেছনে র‍্যাব-২-এর নতুন সদর দপ্তর থেকে মাত্র আধা কিলোমিটার দূরে বাড়িটি অবস্থিত। বাড়িটির ঠিক পাশে একটি দোতলা ভবন রয়েছে। বেশির ভাগ প্লট ফাঁকা। কিছু বাড়ি নির্মাণাধীন।

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে র‌্যাবের ডিজি বেনজীর আহমেদ ‘জঙ্গি আস্তানা’ পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে বেলা ১১টার দিকে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, তিনটি পায়ের নমুনা পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, দুজন নিহত হয়েছেন। ফরেনসিক পরীক্ষায় বোঝা যাবে কয়জন মারা গেছেন।

এর আগে আজ সকালে র‍্যাবের পরিচালক (গণমাধ্যম) মুফতি মাহমুদ খান সাংবাদিকদের বলেন, বাড়িটির ভেতর দু-তিনজন ‘জঙ্গি’ মারা গেছেন বলে ধারণা করা যাচ্ছে।

তবে র‍্যাব-২-এর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, বাড়ির ভেতর দুজন ‘জঙ্গির’ ছিন্নভিন্ন মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

বেনজীর আহমেদ বলেন, এ ঘটনায় বাড়ির মালিক ও তত্ত্বাবধানকারীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। বাড়ির মালিক জানিয়েছেন, বাসাটি চলতি মাসের ১ তারিখে ভাড়া নেন নিহত ব্যক্তিরা। তবে ভাড়া দেওয়ার সময় তাঁদের কাছ থেকে জাতীয় পরিচয়পত্রের কোনো কপি নেওয়া হয়নি। গতকাল রাতে বাড়ির তত্ত্বাবধানকারীকে র‌্যাব বাড়িটি থেকে বের করার সময় র‌্যাবকে লক্ষ্য করে বাড়ির ভেতর থেকে গুলি ছোড়া হয়। তিনি বলেন, নিহত ব্যক্তিরা জঙ্গি। তবে ‘জঙ্গিরা’ কোন সংগঠনের, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।