আমরা টাকার বিনিময়ে রাজনীতি করি না -ড. কামাল

নিউজ ডেস্ক:   টাকার বিনিময়ে বা ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করি না বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন। তিনি বলেন, আমরা গর্ব করি যে, আমরা টাকার বিনিময়ে রাজনীতি করি না। ধর্মকে কাজে লাগিয়ে রাজনীতি করি না। আমরা জনগণের ওপর ভিত্তি করে অসাম্প্রদায়িক রাজনীতি করি।

গতকাল শনিবার নিজের ৮৩তম জন্মদিনে শুভেচ্ছাসিক্ত হয়ে গণফোরামের এক সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ড. কামাল বলেন, এবার ভালো ভালো লোকজন এসে গণফোরামে যোগ দিয়েছেন। তারা যোগ দিয়েছেন এ জন্য যে, আমাদের দল কর্মক্ষম, এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে এবং তারা এসে অবদান রাখতে চান। আমাদের সবচেয়ে বড় কাজ হবে সাংগঠনিক কাজে নিজেদের নিয়োজিত করা। সদস্য সংগ্রহ বাড়াতে হবে। এটি বাড়াতে হবে এই কারণে যে, এই দলটি দেশের জাতীয় দল, যেখানে সব মহল প্রতিনিধিত্ব করবে।

তিনি আরও বলেন, গঠনমূলক রাজনীতির মধ্য দিয়ে পরিবর্তন আনতে চাই। যে পরিবর্তন সবাই চাচ্ছে, সেটি হচ্ছে কার্যকর গণতন্ত্র। আমাদের এই গঠনমূলক রাজনীতির মধ্য দিয়ে গঠনমূলক কর্মসূচির ভিত্তিতে যে রাজনীতি দেশে গড়ে উঠছে, এর মধ্য দিয়ে আমরা আগামীতে দেশে কাক্সিক্ষত পরিবর্তন আনতে পারব। আমাদের মনে রাখতে হবে- শক্তিশালী সংগঠন ছাড়া অর্থপূর্ণ কাজ করা যাবে না, দেশে পরিবর্তন আনা যাবে না।

সংবিধানের এই প্রণেতা আরও বলেন, দেশের জনগণ আন্দোলনের মাধ্যমে সফল হবে। কোটা আন্দোলন, নিরাপদ সড়ক আন্দোলনসহ গণতান্ত্রিক আন্দোলনে যেসব তরুণ সম্পৃক্ত ছিল, তাদের জন্য সামনের দিনগুলোতে উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ অপেক্ষা করছে। আমরা স্বাধীনতার ৫০ বছরপূর্তির আগেই সফল হব। দেশ আরও এগিয়ে যাবে। এ সময় তিনি সবাইকে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন গণফোরাম নেতা সুব্রত চৌধুরী, মোস্তফা মহসিন মন্টু, অধ্যাপক আবু সাইয়িদ, রেজা কিবরিয়া, মফিজুল ইসলাম খান কামাল, আলতাফ হোসেন, সিরাজুল হক, আ ম সা আ আমিন, মহসিন রশিদ, জগলুল হায়দার আফ্রিক, মোশতাক আহমেদ, রফিকুল ইসলাম পথিক ও ছাত্রনেতা মোহাম্মদুল্লাহ মধু প্রমুখ।

প্রায় তিন দশক আগে আওয়ামী লীগ ছেড়ে গণফোরাম গঠনের পর বর্তমান সময়ের দলটি সবচেয়ে বেশি আলোচিত। গত একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপির সঙ্গে জোট বেঁধে ভোটে অংশ নেওয়ার পর অনেকেই এ দলে যোগ দেন। এই প্রথম সংসদ নির্বাচনে দুটি আসনে বিজয়ীও হয়েছে কামাল হোসেনের দল। ভোটের ফল প্রত্যাখ্যানের পর পুনর্নির্বাচনের দাবিতে বিএনপির সঙ্গে সক্রিয়ও রয়েছে দলটি।