কারফিউ ভেঙে সুদানের রাজধানীতে বিক্ষোভ

নিউজ ডেস্ক:  নতুন সামরিক বাহিনীর জারি করা কারফিউ অমান্য করে সুদানের রাজধানী খার্তৃমের সড়কগুলোতে আন্দোলনকারীরা অবস্থান নিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার এক সামরিক অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে প্রেসিডেন্ট ওমর আল-বশিরকে ক্ষমতাচ্যুত করে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে উৎখাত করার পর কারফিউ জারি করে সামরিক পরিষদ। খবর বিবিসির।

খার্তুমের সড়কগুলোতে কয়েক মাসের লাগাতার প্রতিবাদের পর বশিরকে ‘ক্ষমতা থেকে সরানো’র ঘোষণা আসলো। তবে সেনাবাহিনীকে বশিরের শাসনামলেরই অংশ দাবি করে আন্দোলনকারীরা রাস্তা ছাড়তে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। আন্দোলনকারীরা খার্তুমের রাস্তায় সুদানের পতাকা নেড়ে স্লোগান দিচ্ছেন।

সেনাবাহিনী ও আন্দোলনকারীদের মুখোমুখি অবস্থানের কারণে দেশটিতে আরও সংঘর্ষ হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন অনেকে। এক অবিভিন্ন কারণে নিরাপত্তা বাহিনী ও সামরিক বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যেতে পারে বলেও আশঙ্কা রয়েছে। জাতিসংঘ ও আফ্রিকান ইউনিয়ন সব পক্ষকেই শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছে।

নাগরিকদের নিরাপত্তার কথা বলে এক ঘোষণায় সুদানজুড়ে স্থানীয় সময় রাত ১০টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত সান্ধ্য আইন জারির কথা জানায় রাষ্ট্র-পরিচালিত গণমাধ্যম।

সামরিক পরিষদ জানিয়েছে, ২৪ ঘণ্টার পর শুক্রবার সুদানের আকাশসীমার ওপর স্থগিতাদেশ তুলে নেওয়া হবে। তবে স্থল ও সামুদ্রিক সীমান্ত বন্ধ থাকবে।

১৯৮৯ সালে সুদানের শাসন ক্ষমতায় আসেন ওমর আল-বশির। তার সরকারের বিরুদ্ধে গত কয়েক মাস ধরেই দেশটিতে বিক্ষোভ চলছিল।

বৃহস্পতিবার ওমর আল-বশিরের ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে দেশটির রাজধানী খার্তুমে সেনা সদর দফতরের বাইরে জড়ো হয়ে উল্লাসে মাতেন অনেকে। এ সময় সেনা সদস্যদের জড়িয়ে ধরে এবং সাজোয়া যানের ওপরে উঠে অনেককে আনন্দ প্রকাশ করতে দেখা যায়।