তারেক রহমানকে ফেরত দিতে যুক্তরাজ্যকে চিঠি

নিউজ ডেস্ক:   ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাসহ তিন মামলার সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে ফেরত চেয়ে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আবেদন করা হয়েছে। এই বিষয়ে যুক্তরাজ্য সরকার ইতিবাচক পদক্ষেপ নেবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। তবে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, বিষয়টি তাদের এখতিয়ারে নেই। এটা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিষয়।

আর বিএনপির অভিযোগ, তারেক রহমানকে ফেরত চেয়ে আবেদন সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার প্রতিফলন।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অনেক নেতা বেশ কিছুদিন ধরেই যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে তাঁর সাজা কার্যকরের কথা বলে আসছেন। এরই মধ্যে তারেক রহমানকে ফেরত পাঠানোর অনুরোধ জানিয়ে যুক্তরাজ্যের কাছে আবেদন করা হলো।

এই বিষয়ে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘আমরা তাঁকে (তারেক রহমান) ফেরত চেয়েছি। আমরা ব্রিটিশ সরকারকে জানিয়েছে, তাঁর বিরুদ্ধে আদালতে রায় হয়েছে। তাঁর অপরাধের ব্যাপ্তি, অপরাধের প্রভাব, ক্ষমতার অপব্যবহার করে তিনি যে কার্যকলাপে লিপ্ত ছিলেন সেই তথ্য, আদালতের রায় ও পর্যবেক্ষণের বিষয়টি আমরা যুক্তরাজ্য সরকারকে জানিয়েছি। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় এবং আদালতের রায়ের প্রতি সম্মান দেখাতে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর জন্য যুক্তরাজ্যকে অনুরোধ করা হয়েছে।’

সরকারের ওই আবেদনের প্রাথমিক জবাবও যুক্তরাজ্যের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের সরকারি কর্মকর্তারা। ওই আবেদনের প্রতিক্রিয়ায় যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, তারেক রহমানকে ফেরত দেওয়ার বিষয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এখতিয়ারে। দুই দেশের মধ্যে বন্দী প্রত্যর্পণ চুক্তি না থাকার বিষয়টিও উঠে এসেছে।

তবে শাহরিয়ার আলম বলেছেন, চুক্তি না থাকার বিষয়টি এই ক্ষেত্রে বাধা হতে পারে না। এটা বলে দায়িত্ব এড়ানোর কোনো সুযোগ নেই। তিনি আরও বলেন, ‘চুক্তি না থাকলেও বিভিন্ন দেশের বন্দীকে আমরা ফেরত দিয়েছি। চুক্তি নেই এমন বেশ কিছু কাজে যুক্তরাজ্যকে আমরা সহযোগিতাও করি। তবে তারেক রহমানকে ফিরিয়ে আনতে এই রকম চুক্তি যদি বাধা হয়, আমরা চুক্তি করব।’

এই বিষয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, তাদের (সরকার) যে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা তা বিএনপির ওপর, বিএনপির নেতৃত্বের ওপর, বিশেষ করে জিয়া পরিবারের ওপর চরিতার্থ করতেই এই পদক্ষেপ। তারেক রহমান চিকিৎসার জন্য যুক্তরাজ্যে রয়েছেন। এখন যদি তাঁকে ফেরত পাঠানোর জন্য আবেদন করা হয়, তাহলে সেটি অমানবিক বিষয়।

তারেক রহমানকে ফেরত আনার প্রক্রিয়ার বিষয়ে লন্ডনে অভিবাসনবিষয়ক আইনজীবী সৈয়দ ইকবাল বলেছেন, এটি রাজনৈতিক কোনো বিষয় নয়। এটি আইনগত বিষয়। তিনি বলেন, কাউকে ফেরত নিতে হলে যুক্তরাজ্যের ২০০৩ সালের প্রত্যর্পণ আইন অনুযায়ী নির্দিষ্ট দপ্তরে আবেদন করতে হবে তথ্যপ্রমাণসহ। ওই দপ্তর আবেদনটি আদালতে পাঠাবে। আদালত আবেদনের তথ্যপ্রমাণ পরীক্ষা করে দেখে সিদ্ধান্ত নেবেন। এটা হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত যেতে পারে।

এই বিষয়ে জানতে যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত তারেক রহমানের আইনজীবী এ কে এম কামারুজ্জামান বলেন, তারেক রহমানকে ফেরত চাওয়া রাজনৈতিক ব্যাপার। রাজনৈতিকভাবে সরকার ফেরত চাইতে পারে। তবে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তারেক রহমানকে সাজা দেওয়া হয়েছে। তাঁর প্রত্যর্পণের বিষয়ে ব্রিটিশ আদালতে শুনানি হলে সেখানে সবোর্চ্চভাবে মোকাবিলা করা হবে। তবে সেটা অনেক দূরের কথা। আদৌ এটা হবে কি না, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।