বেল্ট এন্ড রোড ইনিশিয়েটিভের ক্ষেত্রে তড়িঘড়ি করা ঠিক হবে না: ড. আতিউর

নিউজ ডেস্ক:   বেল্ট এন্ড রোড ইনিশিয়েটিভের সুবিধা নেওয়ার ক্ষেত্রে তড়িঘড়ি করা ঠিক হবে না, বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর অধ্যাপক ড. আতিউর রহমান। মঙ্গলবার (০২ এপ্রিল) ঢাকায় হোটেল আমারি-এ সানেম-ইউএনডিইএসএ আয়োজিত ‘বেনিফিটস এন্ড চ্যালেঞ্জেস অফ চায়না-লেড বিআরআই টু সাউথ এশিয়া’ শীর্ষক কর্মশালায় সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশীয় বাজারের ক্ষুদ্র আকারের কথা মাথায় রেখে অবশ্যই চীন, আসিয়ান ও ভারতের বৃহত্তর বাজারগুলোতে প্রবেশের চেষ্টা করতে হবে। আর এ জন্য বিবিআইএন এবং বিসিআইএম-এর মতো আঞ্চলিক সহযোগিতা বৃদ্ধির উদ্যোগগুলোতে সম্পৃক্ত হতে হবে। ভূ-রাজনৈতিক স্পর্শকতরতার দিকগুলোর বিবেচনায় বাংলাদেশের মতো ছোট দেশগুলো কোন রকম জটিলতা ছাড়া খুব সহজেই এসব বৃহত্তর আঞ্চলিক যোগাযোগ অবকাঠামেরা সুবিধা ভোগ করতে শুরু করবে এমনটি আশা করা উচিৎ হবে না। বরং আমাদেরকে উদ্ভাবনী হতে হবে এবং তড়িঘড়ি না করে সতর্কতার সাথে এগুতে হবে’।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক মাহতাবউদ্দিন কর্মশালায় মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন। অধ্যাপক ওয়াহিদুদ্দিন মাহমুদ রোহিঙ্গা শরণার্থী সঙ্কটের কারণে মায়ানমারের মধ্য দিয়ে সড়ক পথে চীনের বাজারের সঙ্গে সংযোগ বৃদ্ধির চেয়ে সমুদ্র পথে চীনের সঙ্গে বাণিজ্য বৃদ্ধির বিষয়ে বেশি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি আরও বলেন যে, ‘যে সমস্ত উদ্যোক্তারা চীনের বাজারে প্রবেশের সুযোগ খুঁজছেন, বাংলাদেশ তাদের জন্য আকাশ পথে যোগাযোগের আ লিক কেন্দ্র (এভিয়েশন হাব) হয়ে উঠতে পারে। অধ্যাপক এনামুল হকও বাংলাদেশের আকাশ পথে আন্তর্জাতিক যোগাযোগের আ লিক কেন্দ্র হিসেবে গড়ে ওঠার সম্ভাবনার ওপর জোর দেন’।

সানেমের পক্ষ থেকে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক সেলিম রায়হান। বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ওয়াহিদুদ্দিন মাহমুদ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিএফটিআই-এর মহাপরিচালনক জনাব আলি আহমেদ এবং ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এনামুল হক।

তবে আলোচকদের সকলেই বেল্ট এন্ড রোড ইনিশিয়েটিভ (বিআরআই) এর আওতায় যে বৃহত্তর অবকাঠামোগুলো নির্মাণ করা হচ্ছে এবং হবে সেগুলোর পরিবশগত প্রভাব বিষয়ে সচেতন থাকার দিকে আলোকপাত করেন। পাশাপাশি তারা চীনা বিনিয়োগকারিদের সমর্থনে চলমান অবকাঠামো প্রকল্পের গুণমানের বাস্তবায়নের দিকে বিশেষ মনযোগ দেওয়ার আহ্বান জানান।