রিয়ালকে ভালোবাসি বলেই ফিরেছি: জিদান

নিউজ ডেস্ক:  রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে ২৮৪ দিন ছিলেন জিদান। চাকরি নেননি কোথাও। কাতার, পিএসজি, ম্যানইউ, চেলসি, জুভেন্টাসের মতো ক্লাবের সঙ্গে জোড়া হয়েছে তার নাম। কিন্তু গুঞ্জন সত্যি হয়নি। জিদানও চাকরি নেননি। তিনি কি জানতেন, রিয়ালের দুর্দাশা হবে। তাকেই আবার ফিরতে হবে? জানুক বা না জানুক, জিদান ফিরেছন। আর ফেরার কারণ হিসেবে রিয়াল বস জানালেন, রিয়াল সভাপতির ডাক আর রিয়ালের প্রতি ভালোবাসা তাকে ফিরিয়েছে।

রিয়াল মাদ্রিদ ভক্তদের জন্য জিদান হাতের আঙুলের মতো চেনা। রিয়ালে খেলেছেন। রিয়ালেই কোচিং শুরু করেছেন। লিজেন্ড কোচ হয়ে উঠেছেন। তাকে সংবাদ সম্মেলনে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার কিছু নেই। কিন্তু জিদানকে ফেরানো নিয়ে রিয়াল সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ কি বলেন এবং জিদানের কথা শোনার জন্য সংবাদ সম্মেলনের অপেক্ষা ছিল।

পেরেজ বলেন, ‘রিয়ালের নতুন এক যুগ। নতুন প্রজেক্ট। যা শুরু হচ্ছে জিদানের মতো এক নেতার অধীনে। বিশ্বসেরা কোচ এখন আমাদের এখানে। লিজেন্ডারি এই ক্লাবের প্রতি ভালোবাসা এবং অনুরাগের জন্য ধন্যবাদ জিজু।’

পরে কথা বলার পালা জিজুর। তিনি আবেগ দিয়ে শুরু করলেন, ‘ঘরে ফিরতে পেরে খুশি। বড় আনন্দের ব্যাপার হলো রিয়াল সভাপতি আমাকে ডেকেছেন। এটা সবার জন্যই বিশেষ এক দিন। আমি খুব খুশি। আলাদা করে বলার কিছু নেই। ক্লাবের যে জায়গা প্রাপ্য তা পেতে কাজ করতে চাই। কাল থেকেই অনুশীলনে জোর দেবো।’

রিয়াল ছাড়লেও বার্নাব্যুর কাছেই ছিলেন বলে জানান বিশ্বকাপ জয়ী ফুটবলার এবং রিয়ালকে পরপর তিনটি চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতানো জিদান। তবে শক্ত এক প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয়েছে তাকে। কেন ক্লাব ছাড়লেন? রিয়াল কোচের উত্তর, ‘ক্লাব ছাড়ার দরকার ছিল। ঠিক ক্লাবের জন্য নয় বরং ফুটবলারদের স্বার্থে। সবকিছু জয়ের পর তারা যাতে আত্মতুষ্টিতে না ভোগে সেজন্য আমার যেতে হতো।’

তবে ফিরলেন কেন। পেরেজের ডাকের কথা আগেই বলা হয়েছে। সঙ্গে জিজু যোগ করলেন, ‘আটমাস বিরতির পরে কোচিংয়ে ফিরতে চেয়েছিলাম। সবার ভালোর কথা চিন্তা করে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এখন ক্লাবে বড় এক পরিবর্তন দরকার। খেলোয়াড়দের মুখের দিকে তাকালে আমি ক্লাবের পাগল ভক্তদের দেখতে পাই। ক্লাবের জার্সি-ব্যাজ পরে খেলেছি।’

জীবন মানেই ভালো-খারাপের সমন্বয়। জিদান তবুও ফিরেছেন। এখন রিয়ালে কিছু পরিবর্তন আনবেন বলে মনে হচ্ছে, ‘বড় এক চ্যালেঞ্জ এটি। শুধু দ্বিতীয়বার ফিরেছি বলে না। অতীত নিয়ে এখন ভাবছি না। ভাবলে ফিরতাম না। নতুন ফুটবলার কেনা নিয়ে চিন্তা করছি না। ভাবছি এটা আমার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ এক দিন।’ রোনালদোর প্রশ্নে বলেন, সে ক্লাবের অতীতের অংশ। এখানে সে কোন আলাপের বিষয় নয়। বিষয় হলো আমাদের সামনে ১১ ম্যাচ বাকি আছে।’

হাতে বেশ কিছু ক্লাবের অফার ছিল জানিয়ে জিদান বলেন, আমি অন্য ক্লাবে যেতে চাইনি। এখন রিয়ালে আমার কাজ হলো, মৌসুমটা ভালো মতো শেষ করা এবং আগামী মৌসুমের জন্য তৈরি হওয়া। খারাপ ফর্মের কারণে ক্লাবের কিছু খারাপ সময় গেছে। এটা জিদানের সঙ্গে হতে পারে সেটাও জানেন তিনি। কিন্তু সে সব নিয়ে আপাতত ভাবছেন না জিজু। ভাবছেন আগামী শনিবার সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে।