প্রতিটি গ্রাম ডিজিটাল করাই সরকারের লক্ষ্য: মোস্তাফা জব্বার

নিউজ ডেস্ক:   ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, দেশের প্রতিটি গ্রামকে ‘ডিজিটাল গ্রামে’ পরিণত করাই বর্তমান সরকারের লক্ষ্য। মঙ্গলবার স্থানীয় একটি হোটেলে ‘ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ইন্টারনেট সেবায় দেশের সব এলাকার জন্য ‘এক দেশ এক রেট’ ব্যবস্থা চালু করা হবে। শহরের মানুষের চেয়ে গ্রামের মানুষকে বেশি টাকা ব্যয় করতে হচ্ছে। এটা কোনোভাবেই যুক্তিযুক্ত নয়। টেলিযোগাযোগ সেবার গুণগত মান নিশ্চিত করতে প্রয়োজনে ভর্তুকি দেওয়ার বিষয়টিও সরকার বিবেচনা করে দেখবে।

টেলিকম রিপোর্টার্স নেটওয়ার্ক, বাংলাদেশ (টিআরএনবি) আয়োজিত এ সভায় আরও বক্তব্য দেন বিটিআরসির চেয়ারম্যান জহুরুল হক, ফাইবার অ্যাট হোমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মঈনুল হক সিদ্দিকী, সামিট কমিউনিকেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরিফ আল ইসলাম, গ্রামীণফোনের ডেপুটি সিইও ইয়াসির আজমাইন, ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন আইএসপিএবির সভাপতি আমিনুল ইসলাম হাকিম, অ্যামটবের সাবেক মহাসচিব টি আই এম নুরুল কবীর, বিটিআরসির পরিচালক গোলাম রাজ্জাক, ফাইবার অ্যাট হোমের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা আব্বাস ফারুক এবং রবির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা অনামিকা ভক্ত।

টিআরএনটি সভাপতি মুহাম্মদ জাহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় দুটি গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। একটি উপস্থাপন করেন টিআরএনবির সাধারণ সম্পাদক সমীর কুমার দে, অপরটি উপস্থাপন করেন সামিট কমিউনিকেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। এতে বর্তমানে টেলিযোগাযোগ সেবার ক্ষেত্রে ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্কের সক্ষমতা, দুর্বলতা এবং সেবার গুণগত মান নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জগুলো তুলে ধরা হয়। বলা হয়, দেশীয় উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগে গড়ে ওঠা দুটি বেসরকারি ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক (এনটিটিএন) কোম্পানি দেশের ইউনিয়ন পর্যায় পর্যন্ত শক্তিশালী নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে। এই প্রতিষ্ঠানগুলো ফাইভজি সেবার জন্যও প্রস্তুত। প্রবন্ধের ওপর আলোচনায় বক্তারা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সরকারের উদার ও সময়োপযোগী দৃষ্টিভঙ্গি ও নীতিকাঠামো তৈরির ওপর গুরুত্ব তুলে ধরেন।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, সরকার কারও ওপর কিছু চাপিয়ে দিতে চায় না। ভর্তুকি দেওয়ার প্রয়োজন হলেও তাও দেওয়া হবে। তবে গ্রাহকসেবার গুণগত মান নিশ্চিত করা হবে। তিনি বলেন, নির্বাচনী ইশতেহারে গ্রামকে শহরে রূপান্তরের কথা বলা হয়েছে। এর অর্থ ডিজিটাল সেবা গ্রামে গ্রামে পৌঁছে দেওয়া। অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশের সব গ্রাম হবে ডিজিটাল গ্রাম। তিনি বলেন, ঢাকার একজন বাসিন্দার চেয়ে জেলা শহরগুলোতে ইন্টারনেট ব্যবহারে বেশি মূল্য দিতে হচ্ছে, এটা যুক্তিসঙ্গত নয়।