সিইসির বক্তব্য নিয়ে বিতর্ক অযৌক্তিক: হানিফ

নিউজ ডেস্ক:  আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) নির্বাচনী অনিয়মের অভিযোগ থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য ইভিএম পদ্ধতির ব্যবহার যৌক্তিক বলে তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন। তাই সিইসির বক্তব্যের একটা খণ্ডিত অংশ নিয়ে অহেতুক বিতর্ক করার কোনো যৌক্তিকতা নেই। সেটা নিয়ে বিভ্রান্ত হওয়ারও কোনো কারণ নেই।

রোববার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মাহবুবউল আলম হানিফ এসব বলেন। ‘রাতে ব্যালট পেপারে সিল মেরে ভোটের বাক্স ভরা’ নিয়ে সিইসির বক্তব্য-সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সিইসির বক্তব্য সঠিকভাবে উত্থাপন হয়েছে কি-না, আমরা জানি না। একটা খণ্ডিত অংশ নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। আমাদের দেশে প্রতিটি নির্বাচনের পরই পরাজিত দল ও পরাজিত প্রার্থী নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ করেন। তাই ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহার করা গেলে ব্যালটের সংশ্লিষ্টতা আর থাকে না। ব্যালট নিয়ে প্রার্থী বা দলের যে অভিযোগ, সেটা নিয়ে অভিযোগ করার যৌক্তিকতা থাকে না।

কিছু উপজেলায় স্থানীয় এমপিদের নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ-সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে হানিফ বলেন, সংসদ সদস্যদের আচরণবিধি লঙ্ঘনের কারণেই কিন্তু নির্বাচন কমিশন ওই এলাকার নির্বাচন স্থগিত করেছে। এর মধ্য দিয়ে নির্বাচন কমিশন আবারও প্রমাণ করেছে, নির্বাচন অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু করার জন্য তারা বদ্ধপরিকর।

প্রথম ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য ছিল নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক হোক। নির্বাচনে জয়-পরাজয় আছেই। নির্বাচনে পরাজিত হলেই অভিযোগ করে নির্বাচন থেকে দূরে থাকা কোনো রাজনৈতিক দলের শুভবুদ্ধির পরিচয় বহন করে না।

বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার বিএসএমএমইউতে চিকিৎসা নিতে অনীহা-সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, খালেদা জিয়া সেই পরিমাণ অসুস্থ বোধ করলে তো চিকিৎসা নিতে অনীহা প্রকাশ করতেন না। আমি যদি সুস্থ মানুষ থাকি, আমাকে কেউ জোর করে চিকিৎসা দিতে চাইলে আমি কি নেব? তিনি হয়তো নিজেকে সুস্থ মনে করছেন বা যে কোনো কারণে মনে করছেন, এই মুহূর্তে তার চিকিৎসার প্রয়োজন নেই। সে কারণে অনীহা প্রকাশ করতে পারেন। আর একজন দণ্ডপ্রাপ্ত কয়েদির সবকিছুর দায়ভার কারা কর্তৃপক্ষের।

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, অসীম কুমার উকিল এমপি, ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এমপি, অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, হারুনুর রশীদ, শামসুন্নাহার চাঁপা, এসএম কামাল হোসেন প্রমুখ।