রাবিতে আন্তর্জাতিক ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলনের সমাপনী

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) আন্তর্জাতিক ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন আরইউমান-এর সমাপনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীরা আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে মতামত দেন। জাতিসংঘের আদলে কাজ করা বিশ্ববিদ্যালয়ের মডেল ইউনাইটেড ন্যাশন অ্যাসোসিয়েশন (আরইউমুনা) এ সম্মেলনের আয়োজন করে।

রবিবার (০৩ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের তাজউদ্দীন আহমেদ সিনেট ভবনে ‘সহিংসতার বিরুদ্ধে সোচ্চার, মানবতার শক্তিতে উজ্জীবিত’ প্রতিপাদ্যে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠিত হয়।

সমাপনী অনুষ্ঠানে আরইউমুনা’র সভাপতি ইমরুল হাসানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জাপানের স্কুল অব ইকোনোমিক্স এর শিক্ষক মোখলেসুর রহমান, আরইউমুনা’র উপদেষ্টা অধ্যাপক শাহ আজম শান্তনু, হিসাববিজ্ঞান ও তথ্যব্যবস্থা বিভাগের শিক্ষক শেখ মো. ইমরান হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, ‘বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় যেভাবে কাজ করার কথা ছিলো জাতিসংঘের সেভাবে কাজ করতে পারছে না। ফলে বিশ্বে উদ্ভ‚ত সমস্যাগুলোর সমাধানও হচ্ছে না। বিশ্বের প্রতিটি দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য জাতিসংঘের গণতন্ত্রায়ন প্রয়োজন।’ সাংসদ বলেন, সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ শিক্ষার্থীরা বিশ্বের সমস্যাগুলো নিয়ে কাজ করছে। তারা এখন থেকেই বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠার কথা ভাবছে। এটা অংশগ্রহণকারীদের মেধা ও সৃজনশীলতা বৃদ্ধি করবে।’

এবারের সম্মেলনে বাংলাদেশ, ভারত, থাইল্যান্ডসহ ৫৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় আড়াইশো শিক্ষার্থী সম্মেলনে অংশ নেন। অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ, জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদ, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল, উত্তর আটলান্টিক নিরাপত্তা জোট, বাংলাদেশ বিষয়ক বিশেষায়িত কমিটি, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম, জাতিসংঘ মাদক ও অপরাধ বিষয়ক দপ্তর এবং আন্তর্জাতিক সমুদ্র সংস্থা এসব কমিটিতে ভাগ করে দেওয়া হয়। অংশগ্রহণকারীরা শিশু-কিশোরের বিরুদ্ধে অপরাধ, ক্রিপ্টোকারেন্সি, জাতিসংঘে বাংলা, সমুদ্র দূষণ রোধসহ বিভিন্ন বিষয়ে নিজেদের মতামত তুলে ধরেন। অংশগ্রহণকারীরা আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ইস্যুতে বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। সমাপনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদেরকে পুরস্কার হিসেবে সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

আয়োজকদের প্রত্যাশা অংশগ্রহণকারীদেরকে আগামীর কূটনীতিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে এবং তাদেরকে বিশ্বমানের নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে ভূমিকা রাখবে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের তাজউদ্দীন আহমেদ সিনেট ভবনে চার দিনব্যাপী এ সম্মেলনের উদ্বোধন করা হয়।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম/জাহিদ।