এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে সিঙ্গাপুরের পথে ওবায়দুল কাদের

নিউজ ডেস্ক:   গুরুতর অসুস্থ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তাকে বহনকারী এয়ার অ্যাম্বুলেন্সটি  সোমবার বিকেল ৪টা ৮ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে রওনা হয়। ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে যাচ্ছে তার পরিবারের সদস্যসহ চিকিৎসা বোর্ড।

বিকেল পৌনে ৪টায় ওবায়দুল কাদেরকে বহনকারী অ্যাম্বুলেন্সটি বিমানবন্দরের ভিআইপি টার্মিনালে পৌঁছায়। এর আগে বিকেলে বিএসএমএমইউ থেকে বিমান বন্দরের দিকে যাত্রা করে অ্যাম্বুলেন্সসহ চিকিৎসকদের গাড়িবহর।

সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ওবায়দুল কাদেরকে ভর্তি করা হবে বলে দুপুরে সংবাদ ব্রিফিংয়ে জানান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া। ভারতের প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দেবী শেঠির পরামর্শেই তাকে সিঙ্গাপুরের নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয় বলেও জানান তিনি।

এর আগে দুপুরে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া জানান, ভারতের প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দেবী শেঠির পরামর্শে যতদ্রুত সম্ভব ওবায়দুল কাদেরকে সিঙ্গাপুর নেওয়া হবে। তাকে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ভর্তি করা হবে বলেও জানান তিনি।

কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, ‘ওবায়দুল কাদেরের অবস্থার উন্নতি হলেও শঙ্কামুক্ত নন। তার শারীরিক অবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে। তার রক্তে ইনফেকশনের ঝুঁকি আছে। রক্তে ইনফেকশনের মাত্রা ১৮০০ ছিল, যা বেড়ে ২৬০০ হাজার। তার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে এবং প্রেশার নরমাল আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘উনারা (দেবী শেঠি) বললেন যে বিভিন্ন রকম জটিলতা হতে পারে। এখন যেহেতু রিলেটিভলি অনেক সেফ পজিশনে আছে (ওবায়দুল কাদের) আপনাদের যদি এরকম কোনো চিন্তা ভাবনা থাকে (বিদেশে নেওয়ার) তাহলে দিস ইজ দ্য অপটিমাল টাইম টু শিফট হিম।

কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, সেহেতু আমরা এয়ার অ্যাম্বুলেন্স, যেটা মাউন্ট রয়েল এলিজাবেথ থেকে আনা হয়েছিলো সেটাকে আমরা রেখে দিয়েছিলাম। তাদেরকে আমরা বলেছি, আপনি যতদ্রুত সম্ভব তাকে স্থানান্তর করতে পারবে। উনার মন্তব্য পাওয়ার পর আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে তথ্যটি দিলাম এবং তিনিও বললেন, ঠিক আছে তাহলে তাদেরকে নিয়ে যেতে বলো।’

এখন নির্ভর করছে সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকদের ওপর, আমাদের নয়। উনার (ওবায়দুল কাদের) সঙ্গে উনার পরিবার প্রস্তুত। উনার সহযোগী হিসেবে যিনি যাবেন তিনিও প্রস্তুত।’

এর আগে ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা পরীক্ষা করতে ঢাকায় আসেন দেবী শেঠি। সোমবার বাংলাদেশ সময় ১২টা ৪৫ মিনিটে চার্টার্ড বিমানে করে তিনি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান।

এর পর দুপুর পৌনে দুইটার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন কাদেরের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন দেবী শেঠি। এর আগে রোববার রাত পৌনে আটটার দিকে সিঙ্গাপুর থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দল বিএসএমএমইউ-তে আসে। চিকিৎসক প্রতিনিধিদলে চিকিৎসক ছাড়া নার্সও ছিলেন।

গতকাল রোববার সকালে বুকে ব্যথা অনুভূত হলে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদককে নেওয়া হয় বিএসএমএমইউ-তে। পরে তাৎক্ষণিকভাবে পরীক্ষায় তার হার্টে ৩টি ব্লক ধরা পড়ে। তখন তাকে ভেন্টিলেশনে (কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যবস্থা) রাখা হয়।