তুরাগ তীরে জুমার নামাজে লাখো মুসল্লির ঢল

নিউজ ডেস্ক:  মুখে তাকবির ধ্বনি। বুকে ইমানের বল। গন্তব্য কহর দরিয়াখ্যাত টঙ্গীর তুরাগ নদের তীর। চারদিকে যেন তিল ধারণের ঠাঁই নেই। দুই বর্গকিলোমিটার আয়তনের মূল শামিয়ানা ছাড়িয়ে আশপাশের এলাকাজুড়ে শুধুই মানুষ আর মানুষ। মাথায় টুপি, গায়ে পাঞ্জাবি পরিহিত লাখো মুসলিমের এ স্রোত মিলিত হয়েছে বিশ্ব ইজতেমার মাঠে। মূল মঞ্চ থেকে প্রচার হচ্ছিল বয়ান। কিছু সময়ের জন্য বিশাল জমায়েত স্তব্ধ হয়ে যায়। কাকরাইল মসজিদের খতিব মাওলানা হাফেজ মোহাম্মদ যোবায়েরের ইমামতিতে দেশ-বিদেশের লাখ লাখ মুসলমানের জমায়েতে গতকাল শুক্রবার তুরাগতীরে অনুষ্ঠিত হয় দেশের বৃহত্তম জুমার নামাজ। ঘড়ির কাঁটা তখন দুপুর ১টা ৪২ মিনিট। মাওলানা মোহাম্মদ যোবায়ের জুমার খুতবা দেওয়ার জন্য ইজতেমা ময়দানের মূল মঞ্চের সামনে গিয়ে দাঁড়ান। আর সঙ্গে সঙ্গে পিনপতন নীরবতা।

এর আগে ফজরের নামাজের পর পাকিস্তানের মাওলানা শেখ জিয়াউল হকের আমবয়ানের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয় ৫৪তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। উর্দু ভাষায় দেওয়া তার বয়ানকে তাৎক্ষণিকভাবে বাংলায় তর্জমা করে শোনান মাওলানা নুরুর রহমান।

আসরের পর বয়ান করেন ভারতের জোহাইরুল হাসান। এটি বাংলায় তর্জমা করেন মাওলানা দেলোয়ার। বাদ মাগরিব বয়ান করেন ভারতের মাওলানা ইব্রাহিম, বাংলায় তর্জমা করেন জোবায়ের।

এর আগে বৃহস্পতিবার বাদ আসর পাকিস্তানের মাওলানা ওবায়দুল্লাহ খুরশিদের বয়ানের মধ্য দিয়ে অনানুষ্ঠানিকভাবে ইজতেমার কার্যক্রম শুরু জয়। এর আগে ইজতেমা তিন দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হলেও এবার দু’পক্ষের মতভেদের কারণে ধর্ম মন্ত্রণালয় তা চার দিন নির্ধারণ করেছে। প্রথম পর্বের ইজতেমায় অংশ নিচ্ছেন ঢাকার কাকরাইল মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা যোবায়ের অনুসারী মুসল্লিরা। ইজতেমা আয়োজক কমিটি সূত্র জানিয়েছে, এ পর্বের আখেরি মোনাজাত আজ শনিবার সকাল ১০টা অনুষ্ঠিত হবে। মোনাজাত শেষে যোবায়ের অনুসারীরা আজ রাতের মধ্যেই ইজতেমা মাঠ ছেড়ে যাবেন। আগামীকাল রোববার ফজরের নামাজের পর থেকে আমবয়ানের মাধ্যমে দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমায় অংশ নেবেন ভারতের মাওলানা সা’দ আহমাদের অনুসারীরা। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী এ পর্বের আখেরি মোনাজাত আগামী সোমবার অনুষ্ঠিত হবে।

বৃহত্তম জুমায় মুসল্লিদের ঢল : জুমার নামাজে অংশ নিতে তাবলিগ জামাতের লাখ লাখ সাথী ছাড়াও সকাল থেকেই গাজীপুর ও টঙ্গীর আশপাশের এলাকার মুসল্লিরা দলে দলে ময়দানের দিকে আসতে থাকেন। দুপুর ১টার পরপরই মাঠ উপচে পুরো এলাকা জনসমুদ্রে পরিণত হয়। মাঠে স্থান না পেয়ে মুসল্লিরা আশপাশের রাস্তা, গলিতে নামাজে শরিক হন। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয় খুতবা শুরুর আগেই। অগণিত মুসল্লি মহাসড়কে দাঁড়িয়ে জুমার নামাজ আদায় করেন। জুমার নামাজে অংশ নেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর, গাজীপুর মহানগর পুলিশ কমিশনার ওয়াইএম বেলালুর রহমান।

হেলিকপ্টারে ময়দানে আহমদ শফী : হেলিকপ্টারে চড়ে ঢাকার টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে আসেন হেফাজতে ইসলামের আমির ও হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক শাহ আহমদ শফী। তিনি ময়দানে জুমার নামাজ আদায় করেন। আজ শনিবার আখেরি মোনাজাত পর্যন্ত ইজতেমা ময়দানে থাকবেন তিনি।

বিদেশি মেহমান :ভারত, ইন্দোনেশিয়া, নেপাল, ভুটান, সুদান, নাইজেরিয়া, মালয়েশিয়া, ইয়েমেন, সোমালিয়া, ফিলিপাইন, দক্ষিণ আফ্রিকা, মিয়ানমার, সাদ, লিবিয়া, ইতালি, ইরান, ইরাক, কুয়েত, কাতার, পাকিস্তান, সৌদি আরব, মিসর, কানাডা, পানামাসহ বিশ্বের ৯০টি দেশের মুসলমান বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিয়েছেন বলে বিদেশি মেহমান ক্যাম্প সূত্র জানিয়েছে। গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত বিদেশি ১০ হাজার মেহমান ইজতেমা ময়দানে এসে পৌঁছেছেন। এ সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।