সংসদ নির্বাচনে ভোটের মহাডাকাতি হয়েছে: ড. কামাল

নিউজ ডেস্ক:  একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের ‘মহাডাকাতি’ হয়েছে অভিযোগ করে গণফোরামের সভাপতি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন বলেছেন, জনগণের ভোটাধিকার হাইজ্যাক করা হয়েছে। হাইজ্যাককারীদের ‘ওয়ার্নিং’ দিয়ে তিনি বলেন, এসব করে কেউ পার পাবে না।

শুক্রবার রাজধানীর মতিঝিলের আরামবাগে গণফোরামের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা-৬ আসনের নির্বাচনোত্তর শুভেচ্ছাবিনিময় সভায় ড. কামাল এসব কথা বলেন। ঢাকা-৬ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী ও গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরীর পক্ষে কাজ করা নেতা-কর্মীদের সঙ্গে এ শুভেচ্ছাবিনিময় সভা হয়।

কামাল হোসেন বলেন, ‘নির্বাচনের নামে সম্পূর্ণভাবে শুধু প্রহসন নয়, সারা দেশে ভোট মহাডাকাতি হয়েছে। একজনও বলে নাই এখানে সুষ্ঠু নির্বাচন হয়েছে। যারা করেছে তারা নিজেরাই নির্বাচিত না। রাষ্ট্রকে হাইজ্যাক করে জনগণের ভোটাধিকার হাইজ্যাক করেছে।’

বঙ্গবন্ধু ও তাঁর সহকর্মী যাঁরা স্বাধীনতার জন্য জীবন দিয়েছেন তাঁদের অসম্মান ও অবমাননা করা হচ্ছে উল্লেখ করে ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক বলেন, ‘সারা দেশের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বলতে হবে, এটা হতে দেওয়া হবে না। যারা এগুলো করেছে, তাদের আমরা ওয়ার্নিং দিচ্ছি…বাংলাদেশে এগুলো করে কেউ পার পাবে না। এই দেশের ইতিহাস, গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস, বহু স্বৈরাচার দেখেছি। একজন স্বৈরাচারও টিকতে পারেনি।’

শাসক দল হাজার হাজার কোটি টাকা ডাকাতি করেছে বলে অভিযোগ করেন কামাল হোসেন। তিনি আরও বলেন, স্বাধীন দেশের মানুষকে অসহায় অবস্থায় ফেলে দিয়েছে। এই অসহায় অবস্থা সাময়িক। মানুষ সংঘবদ্ধ হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, শোষকদের বারবার শিক্ষা দেওয়া হয়েছে।

যারা শোষণ করছে ও জনগণের সম্পদ লুটপাট করছে তাদের উদ্দেশে কামাল হোসেন বলেন, তারা যেন দ্রুত এসব থেকে বিরত থেকে লুণ্ঠিত সম্পদ মানুষকে বুঝিয়ে দিয়ে সরে পড়ে।

দেশে কোনো উত্তেজনা তৈরি হোক, তা চান না বলে জানান গণফোরামের সভাপতি। তিনি বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছর হতে যাচ্ছে, দেশে প্রবৃদ্ধির হার বাড়ছে, শ্রমিক, কৃষক, প্রবাসীরা অসাধারণ অবদান রেখে যাচ্ছেন। তাঁদের অবদানকে ধ্বংস হতে দেওয়া যাবে না।

গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী বলেন, নির্বাচনের মাধ্যমে জাতির সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। ২০১৪ সালে শেখ হাসিনা গণতন্ত্রকে লাইফ সাপোর্টে পাঠিয়েছিলেন। আর এবার গণতন্ত্রকে লাশ করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন সুব্রত।

নির্বাচনোত্তর শুভেচ্ছাবিনিময় সভায় প্রায় ২০ জন নেতা কর্মী মতামত ব্যাক্ত করেন । অনুষ্ঠান উপস্হাপনা করেন জনাব লতিফুুল বারী হামিম ।