বেক্সিট ভোটে হেরে যেতে পারেন তেরেসা!

নিউজ ডেস্ক:  ব্রেক্সিট চুক্তি অনুমোদন প্রশ্নে যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে হতে যওয়া ভোটাভুটিতে হেরে যেতে পারেন প্রধানমন্তী তেরেসা মে।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় হতে যাওয়া ওই ভোটের কয়েক ঘণ্টা আগে সিএনএন ও রয়টার্সের প্রতিবেদনে এমন পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।

তবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তি পাস হবে নাকি তা প্রত্যাখ্যানের মাধ্যমে নতুন সংকট তৈরি হবে তা দেখার জন্য অপেক্ষা করতেই হচ্ছে।

সিএনএন বলছে, সব হিসাব এবং ভবিষ্যতবাণীতেই তেরেসার হেরে যাওয়ার ব্যাপারে মত এসেছে। ১০০ ভোটের ব্যবধানে বেক্সিট প্রশ্নে হেরে যেতে পারেন বিট্রিশ প্রধানমন্ত্রী।

ইইউ নেতাদের সঙ্গে তেরেসার চুক্তিটি দেশটির সংসদ সদস্যরা পাস না করলে আগামী ২৯ মার্চ কোনও চুক্তি ছাড়াই ইইউ ছাড়তে হতে পারে যুক্তরাজ্যকে। এজন্য হাউস অব কমন্সে চুক্তিটি পাস করাতে সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী।

‘দেশের স্বার্থে’ এ চুক্তিতে এমপিদেরকে সমর্থন দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তেরেসা মে। তিনি বলেন, কোনও চুক্তি ছাড়া ইইউ ছাড়ার চেয়ে ব্রেক্সিট চুক্তি অনেক শ্রেয়। গণভোটের ফলাফল কার্যকর করা না গেলে তা যুক্তরাজ্যের রাজনীতিতে বিশ্বাসের ক্ষেত্রে বিপর্যয় ডেকে আনবে বলেও সাংসদদের সতর্ক করেন তিনি।

এ ছাড়া শেষ সময়ে এসে মের ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে বিরোধী দল লেবার পার্টির প্রধান জেরেমি করবিনও সুর নরম করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, দ্বিতীয় একটি ইইউ গণভোটের চেয়ে ব্রিটেন ব্রেক্সিট চুক্তি নিশ্চিত করছে, এটিই তিনি দেখতে চান।ৱ

পার্লামেন্টে ব্রেক্সিট চুক্তি প্রত্যাখ্যাত হলে প্রধানমন্ত্রী তেরেসা তিন দিনের মধ্যে বিকল্প প্রস্তাব উত্থাপনের সুযোগ পাবেন। সেই প্রস্তাবও যদি প্রত্যাখ্যাত হয়, তবে চুক্তিবিহীন বিচ্ছেদের পথে হাঁটতে হবে যুক্তরাজ্যকে।

পর্যবেক্ষকরা জানিয়েছেন, তেরেসা মের চুক্তি সংসদে অনুমোদন পাবে না এই প্রত্যাশা থেকে আগামী সপ্তাহে একটি ‘নো কনফিডেন্স’ ভোটের জন্য নিজ দলীয় এমপিদের এরই মধ্যে প্রস্তুত করছে লেবার পার্টি। সেক্ষেত্রে আজকের ভোটাভুটিতে শুধু ব্রেক্সিটের ভাগ্য নয়, এর সঙ্গে তেরেসা মের ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির ভাগ্যও নির্ধারণ হয়ে যেতে পারে।