ঝুঁকিপূর্ণ দমদমা ব্রিজ, ট্রাক রেলিং ভেঙ্গে নদীতে

রংপুর প্রতিনিধি: রংপুর নগরীর প্রবেশদ্বারে দমদমা ব্রিজের রেলিং ভেঙ্গে ট্রাক নদীতে পড়ে ৩জন আহত হয়েছে। আগামীতে ব্রিজ হয়ে উঠতে পারে বড় দুর্ঘটনার কারণ।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার আগে রংপুর-ঢাকা মহাসড়ক নির্মিত এই ব্রিজটি এখন খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। প্রতিদিনই ঝুঁকি মাথায় নিয়ে ব্রিজটি দিয়ে চলাচল করছে হাজার হাজার যানবাহন। শনিবারও একটি ট্রাক রেলিং ভেঙ্গে নদীতে পড়ে যায়। এসময় চালক, হেলপারসহ ৩ জন আহত হয়। ফায়ার সার্ভিসের লোকজন এসে আহতদের উদ্ধার করে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ঝুঁকিপুর্ণ এই ব্রিজের ওপর দিয়ে সারাদেশের বিভিন্ন জেলার হাজার হাজার ভারী যানবাহন চলাচল করছে। ব্রিজটি ভেঙ্গে পড়লে যেকোনো মুহুর্তে রংপুর বিভাগের সাথে রাজধানীসহ সারাদেশের বন্ধ হয়ে যাবে সড়ক যোগাযোগ। আপাতত দুর্ঘটনা এড়াতে ব্রিজের নিচে বালিভর্তি বস্তা ঠেস দিয়ে রাখা হয়েছে। এছাড়া ব্রিজটির ফাটলধরা স্থানে লাল রং দিয়ে চিহ্নিত করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে দমদমা ব্রিজটিতে ফাটল দেখা দেয়। এতে দ্রুত সময়ের মধ্যে দরপত্র আহবান করে সড়ক বিভাগ। ২৩ লাখ টাকার বাজেটে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দু’মাস সময়ে শুধুমাত্র বালিভর্তি বস্তা দিয়ে ব্রিজের নিচে ঠেস দেওয়ার কাজ সম্পন্ন করে গত মার্চে। সে অবস্থার মধ্যেই এই ব্রিজের ওপর দিয়ে যানবাহন চলাচল করছে প্রতিদিন । 

আব্দুস সামাদ, আশরাফুল ইসলামসহ স্থানীয় অনেকেরই অভিযোগ, ব্রিজের ফাটল ঠেকাতে দায়সারা কাজ করছে সড়ক বিভাগ। কাজ শেষ হতে না হতেই আবারো ফাটল দৃশ্যমান হয়েছে।  ব্রিজটি রয়েছে হুমকির মুখে।

যানবাহন চালক আব্দুল আজিজ, আমিন মিয়া জানান, ব্রিজের ওপর দিয়ে যখন চলাচল করার সময় প্রাণ হাতে নিয়ে চলাচল করতে হয়। যে কোন সময়ে বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে আশঙ্কা তাদের।

এ ব্যাপারে সড়ক বিভাগ রংপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী সাজেদুর রহমান বলেন, ‘ব্রিজটি মেরামতের জন্য ২৩ লাখ টাকা বরাদ্দ ছিল। সে কাজ শেষ করেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। তবে নতুন করে ব্রিজ নির্মাণের জন্য টেন্ডার আহবান করা হয়েছে।’

তাজহাট থানার ওসি শেখ রোকনুজ্জামান জানান, শনিবার বিটুমিন বহনকারী একটি ট্রাক মটর সাইকেল আরোহীকে সাইড দিতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দমাদমা ব্রিজের রেলিং ভেঙে নদীতে পড়ে যায়। চালক ও হেলপারসহ আহত তিনজনকে দ্রুত উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।