ময়মনসিংহে সৎ উদ্যমী কর্মঠ ও ডায়নামিক মন্ত্রী সময়েয় দাবী

মো. নজরুল ইসলাম, ময়মনসিংহ : দেশের অষ্টম ময়মনসিংহ বিভাগ প্রতিষ্ঠার পর উন্নত বিশ্বের আদলে একটি সর্বাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত একটি স্যাটেলাইট নান্দনিক বিভাগীয় শহর স্থাপনের জন্য উদ্যোগ নিয়েছেন উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার রূপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটানোর জন্য দেশের অষ্টম বিভাগীয় সদর ময়মনসিংহ থেকে একজন সৎ-কর্মঠ, সাহসী কর্মউদ্যমী ডায়নামিক মন্ত্রী নিয়োগ এখন সময়ের দাবী। তা না হলে সরকার তথা এ অঞ্চলবাসীর অনেক আকাঙ্খার প্রতিফলন নাও ঘটতে পারে বলে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বিশিষ্টজন জানান।

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে ময়মনসিংহের বিশিষ্টজনরা জানান, ডায়নামিক মন্ত্রী মির্জা আযম এমপির নেতৃত্বে জামালপুর জেলায় ইতিমধ্যেই প্রায় ৪৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। মির্জা আযম এমপির মতো একজন কর্মউদ্যমী মন্ত্রী ময়মনসিংহ সদর থেকে নিয়োগ দেয়ার জন্য ময়মনসিংহবাসী প্রধানমন্ত্রীর নিকট জোর দাবী জানিয়েছেন। ময়মনসিংহে গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক নেতৃত্ব ও মন্ত্রী ও পাওয়ায় এবং তাদের আন্তরিক সহযোগিতা না পাওয়ায় ইতিপূর্বে অনেক বড় বড় সিদ্ধান্ত ও প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রশাসনিক কর্তব্যক্তিগণের হিমসীম ক্ষেতে হয় এবং বাস্তবায়নের হয় দীর্ঘসূত্রিতা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছু একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্থা জানান, মির্জা আযম এমপির মতো একজন সৎ কর্মউদ্যমী দক্ষ মন্ত্রী ময়মনসিংহ থেকে না পাওয়া গেলে ময়মনসিংহে অনেক গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়নের সুযোগ সৃষ্টি হলেও তা বাস্তবায়নে জটিলতা হতে পারে বলে তিনি আশংকা প্রকাশ করেছেন।

বিভিন্ন সূত্র জানায়, বিভাগ প্রতিষ্ঠার দাবীতে নেতৃত্বদানকারী সংগঠন ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক অন্দোলনের দীর্ঘ ২৬ বছর আন্দোলনের পর অবশেষে টাঙ্গাইল ও কিশোরগঞ্জ জেলাকে ছাড়াও চার জেলা নিয়ে দেশের অষ্টম ময়মনসিংহ বিভাগ প্রতিষ্ঠা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিভাগীয় শহর স্থাপনের লক্ষ্যে সদর উপজেলার আটটি মৌজার প্রায় ৪ হাজার ৩৬৬ একর জমি অধিগ্রহণের করতে ব্যয় ৭ হাজার ৭৬ কোটি ৭৮ লাখ টাকা ভব্যয় সম্বলিত প্রকটি প্রকল্প একনেকে পাশের অপেক্ষায়। নয়া এই শহরে সকল বিভাগীয় দপ্তর ছাড়াও ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ড, একটি সরকারী পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার, লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, বিয়াম ও বিয়াম স্কুল, বিসিএস প্রশাসন একাডেমী, মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, রেঞ্জ ও মেট্রো পুলিশ লাইন, বিভাগীয় সার্কিট হাউস, আইটি পার্ক, আন্তর্জাতিক কনভেনশনস সেন্টার, সরকারী আনন্দ মোহন কলেজের শাখা, শিশু হাসপাতাল, পার্ক, আন্তর্জাতিকমানের বিভাগীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, শিক্ষা ব্লক, স্বাস্থ্য ব্লক, বিশাল লেক, ৫২টি স্পেশাল আবাসিক এলাকা, পর্যটন স্পট, কয়েকটি সুপার মার্কেট, বাজারসহ নাগরিকদের জন্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য নানা সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

এছাড়াও অনক অনেক উন্নয়ন বাস্তবায়িহ হবে এই বিভাগীয় সদরে। শত শষত কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়নে একজন যোগ্য দক্ষ মন্ত্রী ময়মনসিংহ সদর থেকে নিয়োগ দেয়া প্রয়োজন বলে অভিমত প্রকাশ করেছেন বিশিষ্টজনরা।

অভিমত প্রকাশকার বিশিষ্টজনদের মধ্যে রয়েছেন, ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক আন্দোলন ও ময়মনসিংহ বিভাগ উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি ও জয়বাংলা নাগরিক পরিষদের আহবায়ক বর্ষিয়ান আইনজীবী মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক প্রবীণ রাজনীতিবিদ অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান খান, জেলা নাগরিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট সংগঠক ইঞ্জিনিয়ার নুরুল আমিন কালাম, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফয়জুর রহমান ফকির, বিশিষ্ট চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডা: হরিশংকর দাস, বিএমএ জেলা সাধারণ সম্পাদক ডাঃ এইচ এ গোলন্দাজ তারা, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মাহবুবুল আলম, অধ্যক্ষ মোঃ শামসুল বারী, লে. কর্ণেল (অব.) অধ্যক্ষ ড. মোঃ শাহাব উদ্দিন আহমেদ, লায়ন ড. মোঃ সিরাজুল ইসলাম, ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নজরুল ইসলাম প্রমূখ।