কারাবন্দী সকল নেতাকর্মীর মুক্তির পর কুলাউড়ায় আনন্দ সভা : বিজয়ী এমপি সুলতান মনসুর

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি :: একাদশ জাতীয় নির্বাচনে মৌলভীবাজার-২ (কুলাউড়া) আসনের ফলাফল ঘোষণার পর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী সাবেক ডাকসু ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ উপস্থিত হাজারো নেতাকর্মী ও সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আপনাদের কাছে সবিনয় অনুরোধ করছি, আপনারা দয়া করে কেউ উচ্ছ্বাস করবেন না, শ্লোগান দিবেন না। আমি হেঁটেই বাসায় ফিরবো। পরবর্তীতে আমরা আমাদের আনন্দ উৎযাপন করবো, কুলাউড়াবাসীর উদ্দেশ্যে বক্তব্য দিব। আমার পক্ষে কাজ করতে গিয়ে যে সমস্ত চেয়ারম্যান, সাবেক চেয়ারম্যানসহ বিএনপি নেতাকর্মী কারাগারে আছেন তাদের মুক্তি করে তাদের সাথে নিয়ে আনন্দ সভা করবো।’

তিনি বলেন, ‘৩০ ডিসেম্বরের এই নির্বাচনে ধানের শীষে বিজয়ী করতে যে সকল দল-মতের মানুষ, বিএনপির নেতাকর্মীরা অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন তাঁদের সবাইকে কৃতজ্ঞতা জানাই। কুলাউড়ার ১৩ ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার সর্বস্তরের মানুষের সহযোগীতায়, ধানের শীষের নেতাকর্মী ভাইদের অক্লান্ত পরীশ্রমের ফসল হচ্ছে আজ আমি সংসদ সদস্য।’

তিনি আরও বলেন, আমি ওয়াদা করছি, যারা আমার জন্যে, ধানের শীষের জন্যে, বেগম খালেদা জিয়ার জন্যে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের জন্যে কাজ করেছেন তাঁদের পাশে আমি থাকবো। বিশ্বখ্যাতি সম্পন্ন আইনজীবি ড. কামাল হোসেনের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি, যাঁর হাত ধরে আমি আজ এমপি হতে পেরেছি। আমি শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতির জনকের আহ্বানে সাড়া দিয়ে যিনি ২৭ মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন সেই জেনারেল জিয়াউর রহমান, দেশের সকল মুক্তিযোদ্ধাসহ দেশের শহীদ ৩০ লক্ষ শহীদ ও ৩ লক্ষ মা-বোনের ইজ্জতের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।’

বক্তব্য শেষে তিনি বলেন, ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ জিন্দাবাদ, বেগম খালেদা জিয়া জিন্দাবাদ, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট জিন্দাবাদ, সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই, এটাই আমাদের মূল দাবী।’

এর আগে তিনি নির্বাচনের সময় ২৯ ডিসেম্বর দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় হার্ট অ্যাটাকে মৃত ধানের শীষের এজেন্ট উপজেলার কাদিপুর ইউনিয়নের আবুল কাশেম মোস্তফার আত্মার প্রতি শান্তি কামনা করেন। পাশাপাশি তাঁর পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান তিনি।

উল্লেখ্য, মৌলভীবাজার-২ আসনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে মোট ৯৩টি কেন্দ্রেরর মধ্যে ধানের শীষ নিয়ে সুলতান মনসুর পেয়েছেন ৭৯ হাজার ৭৪২ ভোট ও তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি নৌকা নিয়ে এমএম শাহীন পেয়েছেন ৭৭ হাজার ১৭০ ভোট।