বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করাই শেখ হাসিনার একমাত্র লক্ষ্য

রওশন ঝুনু / স্পেশাল কোরেসপন্ডেন্ট: বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একমাত্র লক্ষ্য। প্রধানমন্ত্রীত্ব কিংবা ক্ষমতায় যাওয়া তাঁর লক্ষ্য নয়। তাঁর লক্ষ্য, আগামী প্রজন্ম, উান্নয়ন এবং সমৃদ্ধি। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ে তোলার স্বপ্ন পূরণ করা।
সোমবার ২৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, অস্ট্রেলিয়া আয়োজিত “ সমৃদ্ধির বাংলাদেশ অর্জণে প্রবাসীদের ভূমিকা ও জাতীয় নির্বাচনী প্রচারণা” শীর্ষক আলোচনা-২০১৮ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী এ সব কথা বলেন।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি এ্যাডভোকেট মো. সিরাজুল হক এর নেতৃত্বে ১২ সদস্যের একটি প্রবাসী বাংলাদেশী দল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও নৌকার পক্ষে প্রচারণার জন্য বাংলাদেশে এসে উক্ত সভার আয়োজন করেন। সভাপতি এ্যাডভোকেট মো. সিরাজুল হক এর সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আ আ মস আরেফিন সিদ্দীকি, বিএফইউজের সাবেক সভাপতি, সাংবাদিক নেতা মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, বাংলাদেশ আৗয়ামী লীগ এর সহ প্রচার ও প্রাকাশনা সম্পাদক মো. আমিনুল ইমলাম, আরটিভির সিইও সৈয়দ আসিকুর রহমান। এছাড়াও আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, অস্ট্রেলিয়ার সহ-সভাপতি গাউসুল আজম, সাধারণ সম্পাদক তরীকুল ইসলাম, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, গিয়াস উদ্দিন মোল্লা, যুগ্ম -সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিকদার, শিক্ষা ও গবেষণা সম্পাদক শহীদুর রহমান, সিনিয়ির সহ-সভাপতি লাল্টু চেয়ারম্যান, রিপন আহসান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, সিডনী শাখার সহ-সভাপতি সরোয়ার হোসেন, এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, মেলবোর্ন শাখার সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল হক ও সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. মাহাবুবুল আলম, স্বেচ্ছা সেবক লীগ এর শহীদুল ইমলামসহ আরো অনেকে।

ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে নৌকায় বিজয়ের ক্ষেত্রে কোনো অনিশ্চয়তা কিংবা কোনো ভয় নেই। ভয় শুধু একটাই মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তি, পরাজিত হয়ে প্রতিহিংসার আগুন ছড়িয়ে দিতে পারে। সেই জন্য সারাদেশের মানুষকে সতর্ক থাকতে হবে, যেনো পরাজিত শক্তি দেশের ও দেশের জনগণের কোনো ক্ষতি করতে না পারে। কারণ ২০১৪ সালে ঐ অপশক্তি নির্বাচন বানচাল করার ষড়যন্ত্র করেছিলো, তারা নির্বাচন বয়কট করেছিলো, এর প্রেক্ষিতে জনগণই তাদের বয়কট করেছে। সেই পরাজয়ের প্রতিহিংসায় তারা মানুষকে পুড়িয়ে মেরেছে। অগ্নি সন্ত্রাস, বোমা সন্ত্রাস করেছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আ আ মস আরেফিন সিদ্দিকী বলেন, দেশ প্রেমের যোগ্যতা একটি বড় যোগ্যতা। সর্বোচ্চ শিক্ষা ও অর্থবিত্তের পাশাপাশি যদি সততা ও আদর্শের যোগ্যতা না থাকে, তাহলে সব যোগ্যতাই অর্থহীন। তিনি বলেন, একজন রাজনীতিকের প্রধান যোগ্যতাই হলো দেশপ্রেম। প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে আরেফিন সিদ্দিকী বলেন, দেশপ্রেমের কারণেই আপনারা নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে দেশে ছুটে এসেছেন। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে এবং তাঁর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আদর্শ থেকে, আমাদেরকে সততা, সাহস ও দেশপ্রেমের শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। আমরা যদি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আত্মমর্যাদাসম্পন্ন উন্নয়ত সমৃদ্ধির বাংলাদেশ দেখতে চাই, তাহলে শেখ হাসিনার সরকার গঠনের লক্ষ্যে ৩০ ডিসেম্বর নৌকায় ভোট দিন।

মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেন, পিতার মতোই সাহসী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যাঁর মাথায় বাংলাদেশ আর দেশের উন্নয়ন ছাড়া আর কিছু নাই। প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বিদেশে হয়তো পদ্মা সেতুর মতো বড় সেতু, মেট্রোরেল, ওভারব্রীজ এসব আপনাদেরকে অবাক করে না কিন্তু আমাদের বাংলাদেশে বিশ্বমানের এসব নির্মাণ আমাদের জন্য অধিক গর্বের বিষয়, ইতিমধ্যে যার স্বাক্ষর রচিত হয়েছে। তিনি বলেন, সংসারে যেমন পিতা-মাতাকে সন্তানের প্রতি সঠিক দায়িত্ব পালন করতে হয় ঠিক তেমনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও তাঁর দেশের জনগণের জন্য শিক্ষা, খাদ্য, চিকিৎসা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছেন। নৌকার বিপক্ষের যে শক্তি, সে শক্তি বাংলাদেশের শক্তি নয়। নৌকা না জিতলে এ দেশ আইএসএর হয়ে যাবে। বাটপার সরকার যদি বিজয় লাভ করে তাহলে বিদেশের মাটিতে, বিশ্বের বুকে আপনারাই মুখ দেখাতে পারবেন না। মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি যাতে বিদেশে বিভ্রান্তি ও গুজব ছড়াতে না পারে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখার আহŸান জানান। নৌকার পক্ষে প্রচারণার জন্য সময় ও অধিকঅর্থ ব্যয় করে দেশে ছুটে আসার জন্য প্রবাসী দলকে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানান।

সবশেষে সভাপতির বক্তব্যে মো. সিরাজুল হক বলেন, ওয়ান এলিভেনের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন কারাগারে অন্তরীণ ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, অস্ট্রেলিয়া তখন তাঁর মুক্তির জন্য অষ্ট্রেলিয়ান পার্লামেন্টে বিল আনে। এছাড়াও ওয়েস্টার্ণ সিডনী বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর যে আবক্ষ ভাস্কর্য স্থাপনের পেছনের কারিগর হিসেবেও নিজেদের দাবি করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, অস্ট্রেলিয়ার সৈনিকরা। সমৃদ্ধ ও আলোকিত বাংলাদেশ গড়ার নিমিত্তে সকল প্রবাসী বাংলাদেশিদের পক্ষ থেকে একাদশ জাতীয় নির্বাচনে বাংলাদেশের জনগণের প্রতি নৌকায় ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান এ্যাডভোকেট মো. সিরাজুল হক।