আমরা যাব কোথায় ? -বিএনপি প্রার্থী আব্দুস সালাম

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৩ আসনের বিএনপি প্রার্থী আব্দুস সালাম নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানিয়ে ফেরার পথে তার সঙ্গে থাকা এক নেতাকে আটক করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন।

বুধবার দুপুরে নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদের সঙ্গে দেখা করে ফেরার পথে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন বিএনপি প্রার্থী আব্দুস সালাম।

তিনি বলেন, মোহাম্মদপুর থানা বিএনপির সভাপতি ওসমান গণি শাজাহানকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ইসি থেকে বেরিয়ে গুলশানে ফেরার পথে আইডিবি ভবনের সামনে থেকে তাকে আটক করা হয়।

এরপর আবারও ইসি সচিবের কাছে আটকের বিষয়ে অভিযোগ জানান আব্দুস সালাম।

ইসি থেকে বেরিয়ে তিনি বলেন, বিষয়টি মর্মান্তিক ও দুর্ভাগ্যজনক। নিজের কাছেই নিজেকে অপরাধী মনে হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে কীভাবে নির্বাচন হবে? আমরা কোথায় যাব, আমরা কী নির্বাচন করব না?

অভিযোগ জানিয়ে যাওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই নির্বাচন কমিশন ভবনের কয়েকশ গজের মধ্যে বিএনপি নেতাকে আটকের ঘটনায় বিস্ময় ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

আব্দুস সালাম বলেন, আমি ইসি সচিবকে জানিয়েছি আপনাদের কাছে অভিযোগ দেয়ার কিছুক্ষণ পরই কীভাবে আমার একজন কর্মী আটক হয়? এটা কী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অপতৎপরতা আরেকটা জ্বলন্ত প্রমাণ নয়? তার মানে কী, আমরা নির্বাচন কমিশনেও নিরাপদ না?

আব্দুস সালাম বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন যদি অপারগ হয় তাহলে নির্বাচন না করতে আমাদের বলে দিক, কমিশন কারও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারবে না। কমিশন তাহলে আমাদের নেতাকর্মীদের মানা করে দিক।’

এমন অভিযোগের পর ইসি সচিব আব্দুস সালামকে জানিয়েছেন, ‘সিইসির সঙ্গে আলোচনা করে বিষয়টি দেখব’।

ঢাকা-১৩ আসনের এই প্রার্থী জানান, আটক ওসমান গণির বিরুদ্ধে কোনো মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা নেই। সব মামলায় জামিন থাকা স্বত্তেও এভাবে আটক করে নিয়ে গেছে। এভাবে চলতে থাকলে নির্বাচন করা অসাধ্য। ধরপাকড়ের ভয়ে কর্মীদের নিয়ে ঠিকমত মাঠেই নামতে পারছি না। এসব ঘটনার দ্রুত বিচার দাবি করেন বিএনপির এই প্রার্থী।

গ্রেফতারের বিষয়ে শেরেবাংলা নগর থানা পুলিশ জানায়, তারা এমন কোনো ব্যক্তিকে আটক করেননি।

নিজ নির্বাচনী এলাকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধরপাকড়, অপতৎপরতাসহ বেশ কিছু অভিযোগ নিয়ে দুপুরে নির্বাচন কমিশনে যান আব্দুস সালাম।